আরাকানের অতীত ও বর্তমান

 

মো: আশেক উল্লাহ ফারুকী,টেকনাফ []ewrwe
দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া মহাদেশে অবস্থিত মিয়ানমার। আয়তন ২লক্ষ ৬১ হাজার ৯৭০ বর্গমাইল। লোখ সংখ্যা ৬ কোটির চেয়ে বেশী মিয়ানমারের ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারী বৃটেন স্বাধীনতা লাভ করে। ১৪০টি জাতিগত গোষ্টির মধ্যে মুসলমানেরা হচ্ছে দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মী জনগোষ্ঠি। এদের সংখ্যা ৮০ লাখের চেয়ে বেশি। মিয়ানমারের ছোট বড় শহরেই মুসলমানদের বসবাস। মিয়ানমারের পশ্চিমে এবং বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বে নাফ-নদী ও সাগর উপকূলে এবং বিস্তীর্ন পাহাড়ের পাদদেশে আরাকানের অবস্থান। ২০ হাজার বর্গমাইল এলাকা জুড়ে আরাকান অবস্থিত। ঐতিহাসিকদের মতে আরাকানের মাটি খুবই উর্বর। ব্যবসা বাণিজ্যের জন্য আরাকান প্রসিদ্ধ। বাংলাদেশ ও ভারতের সাথে রয়েছে সীমান্ত। বৃটিশ ঔপানিবেশিক শাসনে আরাকান কখনো সাংস্কৃতিক, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক ভাবে মিয়ানমারে অংশ ছিলনা। ১৮২৪ সালে বৃটিশ বার্মা যুদ্ধে আরাকান বৃটিশ ভারতের অন্তর্ভূক্ত হয়। বার্মিরাজা বুদা পাওয়া কর্তৃক ১৭৮৪ সালে মিয়ানমারের সাথে সম্পৃক্ত করার আগ পর্যন্ত আরাকান স্বাধীন ছিল। কিন্তু ১৯৪০ সালে মিয়ানমার স্বাধীনতা লাভের সময় বৃটেন আরাকানের সার্বভৌমত্ব রেঙ্গুনের কাছে ন্যাস্ত করে। জাতিসংঘের ১৫১৪ ৬ষ্ঠ প্রস্তাব মোতাবেক আরাকানের সার্বভৌমত্ব বার্মা ইউনিয়নের কাছে ন্যস্ত করা ছিল অবৈধ। ১৯৪৮ সালে মিয়ানমার আরাকানকে স্বায়ত্বশাসন প্রদান করেছিল। কিন্তু ১৯৬২ সালে ১ ডিক্রি বলে জেনারেল নে-উইনের নেতৃত্বাধীন সামরিক জান্তা সরকার আরাকানের স্বায়ত্ব শাসন প্রত্যাহার করে। এক সময় স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব আরাকান প্রদেশে রোহিঙ্গা মুসলমানদের বসবাস বেশি ছিল। আর আরাকান মিয়ানমারের অংশ নয়। স্বাধীনতা প্রধানকালে বৃটিশ সরকার আরাকানকে স্বায়ত্বশাসন সহ মিয়ানমারের সাথে সংযুক্ত করে দিয়ে যায়। কিন্তু জেনারেল নে-উইনের সামরিক সরকার ১৯৬২ সালে আরাকানের স্বায়ত্বশাসান রহিত করে এবং পরে মুসলমানদের বহিরাগত হিসেবে গণ্য করে এবং তাদেরকে শুধু দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকে পরিণতই করেনি এবং মুসলমানদের উপর অত্যচার-নির্যাতন বৃদ্ধি করে, যাতে মুসলমানরা সেদেশ ত্যাগ করতে বাধ্য হয়, যা আজো অব্যাহত আছে। আরাকানে রাখাইনদের পরেই মুসলমানদের অবস্থান। বিগত দিনে জাতিগত দাঙ্গা সংঘটিত হওয়ার ফলে আরাকান ক্রমবর্ধমান হারে মিডিয়ার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে থাকে। দুর্ভাগ্যজনক এই যে, আরাকান প্রদেশে বিগত শতাব্দির শেষ দিকে মুসলিম ও অমুসলিমদের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটে। আরাকানের ৮০% শতাংশ মুসলমানের বসবাস থাকার পরও বাইরে জগত খুব তেমন অবগত নয়। ঐতিহাসিকদের মতে রোহিঙ্গাদের পূর্ব পুরুষ হচ্ছে, আরব, তুর্কি, ইরানী, পাঠান, মোগল, বাঙ্গালী এবং ইন্দো-মঙ্গোলীয় বংশোভূত কিছু জনগোষ্টী। রোহিঙ্গারা ধর্মের মুসলমান, তাদের রয়েছে পৃথক সংস্কৃতি ও সভ্যতা। আরাকানের মুসলমান অধিবাসীরা নিজেদের মিয়ানমারের নাগরিকত্বের স্বীকৃতি সমস্যা ভূগছে। ১৯৭৭ সালে তাদের দেশ ত্যাগের চাপের মূখ সম্মূখীন হয়। তখন থেকে রোহিঙ্গাদের উপর আক্রমন শুরু হয়। মিয়ানমার সামরিক জান্তা গোটা আরাকানের মুসলমানদের মুরগের বাচ্চার ন্যায় খাঁঁচার মধ্যে আবধ্য করেছে। তাদের নেই নাগরিক মৌলিক অধিকার। ২০০১ সাল থেকে মুসলিম বৌদ্ধ জাতিগত দাঙ্গা শুরু হয় এবং নির্বিচারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের হত্যার কারণে গোটা আরাকান রাজ্যে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের অর্তনাত আকাশ বাতাশ ভারী হয়ে উঠেছে। বৌদ্ধ ধর্মে জীব হত্যা মহাপাপ হলেও তারা বৌদ্ধ ধর্মের এ মর্মের বাণী কাজে মাধ্যমে অস্বীকার করছে। আরাকান থেকে রোহিঙ্গা মুসলিম নিধন করে সেখানে রাখাইন সম্প্রদায়ের অধিপাত্য বিস্তারে পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। আরাকান রাজ্যে কাউয়ার বিলের সীমান্ত রক্ষী (বিজিপি) ক্যাম্পে আক্রমনে সৃষ্ঠ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সে দেশের সামরিক জান্তা এবং বিজিপি যৌথভাবে আরাকানের রোহিঙ্গা মুসলমানদের দমন, নীপিড়ন অব্যাহত রেখেছে। গত ৯ অক্টোবর এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনার সাথে কারা জড়িত এ তথ্য উদঘাটন না করে নির্বিচারে রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকাকে সীমান্ত রক্ষী বিজিপি সেনাবাহিনী রেডএলাট জারী করে রেখেছে। আরাকান রাজ্য থেকে নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, সৃষ্ট ঘটনার পর থেকে এ পর্যন্ত মিয়ানমারের সায়রিক জান্তার বর্বরোচিত দমন, নিপীড়ন ও নির্যাতনে আরাকানের ৩৩ গ্রাম এখন পুরুষ শূন্য। আরাকানের সাধিকার আন্দোলনের সংগঠন রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আর,এসও) দমনের নামে হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে। প্রায় ৮শত ঘরবাড়ী পুড়িয়ে দিয়েছে। ১১ হাজার মানুষ ঘর ছাড়া হয়ে পাহাড়ে, ধানক্ষেতে বাঁশবনে ও জোপজঙ্গলে আশ্রয় নিয়েছে। সামরিক জান্তা ও বর্ডার পুলিশ (বিজিপি) হাতে ২৩৩ জন নারী পুরুষ ও শিশু হত্যার শিকার হয়েছে। আটক হয়েছে প্রায় ৩শতাধিক। আহত হয়েছে শতাধিক। সামরিক জান্তা এবং বিজিপি নিবির্চারে হত্যার আতংকে ১৩৩ গ্রামের পুরুষ শুন্যতার সূযোগে বাড়ীতে তল্লাশীর নামে লুটপাট এবং সুন্দরী রমনীদের উপর শ্লীলতাহানির ও অভিযোগ উঠেছে। রোহিঙ্গা সালিডারিটি অর্গানাইজেশন (আর,এস,ও) সন্ধান এবং আটকের নামে ১৩৩ গ্রামের ঘরের বেড়া, শৌচাগারের বেড়া ও গোসলখানার বেড়া পর্যন্ত তুলে নিয়েছে সীমান্ত রক্ষীরা। উচ্ছেদকৃত গ্রামগুলো হচ্ছে, কাউয়ার বিল, নাইনসং, ওয়াফেরপাড়া, কিয়ারীপাড়া, হাতগজ্যা পাড়া, নাচ্ছ্যাগুরো পাড়া, বাদল্ল্যাপাড়া, বুড়া সিকদার পাড়া, নাপপুরা পাড়া, লোটাইং, হাতিপাড়া, সিং ডিবি বিলপাড়া, হাছার বিল পাড়া, মোম্বাইপাড়া, দেচ্ছেরপাড়া, তিনগজ্যা পাড়া, খাঁইরপাড়া, কোয়াইংছড়ি বিল পাড়া, খসরের বিলপাড়া, নাপিতত বিল পাড়া, ৫নং ভেকুয়াপাড়, বাঁকঘোনাপাড়া, শীলখালীপাড়া, বুচিদং শরের , নাইক্ষংচংপাড়া, মরিচ্যা বিল পাড়া, কোয়াইসং, আলিদং, রাসিদং শহরের মোজাইপাড়া, আলাপ্রাংপাড়া, ও জেটিং পাড়া। এসব এলাকায় সীমান্ত রক্ষী (বিজিপি) বডার গার্ড পুলিশ এবং সামরিক জান্তার ঘাটি ছিল মোট ৯০টি। এ ঘটনার পর আরো ২৬টি ঘাটি বৃর্দ্ধি করেছে। গত নভেম্বর মাসের ১১ তারিখ থেকে নির্যাতন ও হত্যাসহ টর্সারসেল এর মাধ্যমে নির্বিচারে হত্যাজঘ্য অব্যাহত রয়েছে। বিভিন্ন নেট ও গণমাধ্যম এই বিষয়ের উপর ব্যাপক প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন