আসুন শীতার্তদের পাশে দাঁড়াই

 

তৌহিদুল আরব [] c2-720x540-yyyy720x540ঋতু বদলের চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী চলে এসেছে শীত। এসেছে তার হিম শীতল পরশে আমাদের আলিঙ্গন করতে। আসুন! বরণ করে নেই শীতের এই হিমায়িত আলিঙ্গন ! আসলেই কি সকলের পক্ষে এই ঋতুটি হাসিমুখে বরণ করা সম্ভব উন্নয়নশীল দেশের প্রতিটি মানুষ কি পারছে গরম কাপড়ের আতিশয্যে শীতের প্রকোপ থেকে নিজেকে উষ্ণ রাখতে? প্রতিটি শিশু কি পারছে নিদারুণ আনন্দে শীতের এই আমেজ উপভোগ করতে?
ব্যস্ততম দিনের মাঝে একটু সময় নিয়ে ভাবুন সেইসব অসহায়, শীতার্ত মানুষগুলির মানবেতর জীবনযাপনের বিষয়টি! কেমন আছে তারা?
কিভাবে পার করছে শীতের রাতগুলি? কেউবা চটের ব্যাগে আপাদমস্তক মুড়িয়ে, কেউবা সেটিও পারছে না-বেঁচে থাকার তীব্র লড়াইয়ে কোনভাবে কেটে যাচ্ছে! যে মানুষগুলো একবেলা আহার অন্বেষণের জন্য দিকবিদিক ছুটে বেড়ায়, সে মানুষগুলো কিভাবে শীতবস্ত্র ক্রয় করে জীবনযাপন করবে?
এ শীতের বাতাসে এ মানুষগুলোর জীবনে যে দুর্বিষহ সময় অতিক্রম করবে, তা কি আমাদের বিবেককে জাগ্রত করে না? আমাদের দয়া কি অনুভব হয় না? আমাদের মানবতাবোধ কি উদয় হয়না? যেখানে আমরা প্রতিদিনই নিজ সৌখিনতা পূরণে কত অর্থই না ব্যয় করছি! বছর বছর নিত্য নতুন ফ্যাশনেবল পোষাকের সম্ভার করছি! আসুন! আমাদের মানবতাবোধকে জাগ্রত করে, মনুষত্যকে সঠিক কাজে লাগিয়ে কিছু অর্থ শীতার্ত মানুষের সেবায় ব্যয় করি! দশজন কে না পারি, অন্তত একজনকে একটা কম্বল দিয়ে হলেও তাদের কষ্ট লাঘবের অংশীদার হই। আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় কিছু অসহায় মুখে স্বস্তির হাসি ফোটাই! তাদের হাসিতেই দেশ হাসবে! আমাদের একটি সোয়েটার, কোট, চাদর কিংবা কম্বল যদি এতিম শিশু, অসহায় নারীদের মুখে হাসি ফোটাতে পারে তাহলেই এ ক্ষুদ্র জীবনের স্বার্থকতা খুজে পাওয়া যাবে। আসুন না আমরা আমাদের সামর্থের মধ্যেই তাদের সাহায্য করি, আমাদের ভালোবাসাই হোক তাদের শীতের উষ্ণতা ।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন