ইয়াবা কারবারে এসআইয়ের স্ত্রী! ১০ হাজার ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার তিন

 

রাজধানীর রামপুরা থেকে ১০ হাজার ১০০টি ইয়াবা ট্যাবলেটসহ পুলিশের এক এসআইয়ের স্ত্রী এবং এক দম্পতিকে গ্রেপ্তার করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি)। ওই এসআইয়ের স্ত্রীর নাম তাহমিনা আক্তার এবং ওই দম্পতি হলো পলাশ চন্দ্র দাস ও কুলসুম আক্তার। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে রাজধানীর বনশ্রীর জি ব্লকের ৬ নম্বর সড়কের ৮০/৩০ নম্বর বাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিএনসির কর্মকর্তারা বলছেন, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে তাহমিনা নিজেকে পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) এসআই সালাউদ্দিনের স্ত্রী বলে দাবি করেছেন। তাহমিনা বলছেন, স্বামীর সঙ্গে অভিমান করে তিনি ইয়াবা ব্যবসায় সম্পৃক্ত হয়েছেন। তার দেওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। সে চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে রামপুরা থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে।

গতকাল দুপুরে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চলের সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে ডিএনসির উপপরিচালক (ঢাকা মেট্রো) মুকুল জ্যোতি চাকমা বলেন, গত ১৫ দিনের নজরদারিতে রাখার পর ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার থেকে ইয়াবা এনে ঢাকার বনশ্রীসহ বিভিন্ন স্থানে পাইকারি ও খুচরা বিক্রি করত। তাদের মধ্যে পলাশ মূল হোতা।
তাকে সহযোগিতা করত তার স্ত্রী কুলসুম ও তাহমিনা। গ্রেপ্তারের আগে বনশ্রীর ওই বাসার সামনে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা থেকে পলাশসহ দুই নারী নামে। বাসায় ঢোকার সময়ই তাদের ঘিরে ফেলা হয়। পরে ওই বাড়ির মালিকের উপস্থিতিতে তাদের দেহ তল্লাশি করা হয়। এ সময় কুলসুমের পায়ে বাঁধা অবস্থায় এক হাজার ৬৩২টি এবং তাহমিনার পায়ে বাধা অবস্থায় এক হাজার ৬০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া পলাশের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার মোটরসাইকেল থেকে ৮০০ এবং তার ঘরের আলমারির ভেতর থেকে ছয় হাজার ৩৬টি ইয়াবা জব্দ করা হয়।

ডিএনসির এক কর্মকর্তা বলেন, ‘তাহমিনা নিজেকে সালাউদ্দিন নামে এক এসআইয়ের স্ত্রী বলে দাবি করছে। এখন পর্যন্ত সেটি আমাদের মামলা বা তদন্তের বিষয় নয়। তবে আমরা খোঁজ নিচ্ছি। ’

জানা গেছে, এসআই সালাউদ্দিন পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চে (এসবি) কর্মরত। তাহমিনার সঙ্গে তাঁর অন্তরঙ্গ ছবিও দেখা গেছে। এ ব্যাপারে জানতে গতকাল রাতে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সালাউদ্দিনের মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। তবে দুপুরে কয়েকজন সাংবাদিকের কাছে সালাউদ্দিন দাবি করেন, তাহমিনাকে তিনি চিনেন না।

এসবির পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, এসআই সালাউদ্দিন অবিবাহিত বলে আমরা জানি। কিন্তু গ্রেপ্তার তাহমিনা ডিএনসি কর্মকর্তাদের বলেছে, তার স্বামী এসআই সালাউদ্দিন। এ বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। ইয়াবার বিষয়ে সালাউদ্দিনের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সেন্ট মার্টিনসে ১৪ হাজার ইয়াবা : সোমবার রাতে কক্সবাজারের টেকনাফ থানার সেন্ট মার্টিনস দ্বীপের পূর্বপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৪ হাজার ইয়াবা জব্দ করেছে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিত্তে কোস্ট গার্ড টহল দল ইয়াবা ব্যবসায়ীদের ধাওয়া করলে ইয়াবার ব্যাগ ফেলে তারা পালিয়ে যায়।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন