ঐশী তার বাবা-মাকে হত্যা করেনি

 

oishi_1203rwer84
পুলিশ কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমান এবং তার স্ত্রী স্বপ্না বেগমকে হত্যা মামলায় তাদের মেয়ে ঐশী রহমানসহ তিন জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন তার চাচা ও মামলার বাদি মো. মশিহুর রহমান রুবেল। মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১১টায় ঢাকা মহানগর দায়রা জজ জহুরুল হকের আদালতে তার সাক্ষগ্রহণ শুরু হয়। এর আগে সকালে কারাগার থেকে ঐশী রহমানসহ মামলার অপর দুই আসামি আসাদুজ্জামান জনি ও মিজানুর রহমান রনিকে আদালতে হাজির করা হয়।
আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে ঐশীর চাচা মশিহুর রহমান বলেন, আমার ভাই পুলিশে চাকরি করতেন। দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে হয়ত কারও বিরাগভাজন হয়েছিলেন। এ কারণে দুর্বৃত্তরা তাকে খুন করে থাকতে পারে। ঐশী তার বাবা-মাকে হত্যা করেনি। তিনি বলেন, পুলিশের পরামর্শে আমি এ মামলা করেছি। এজাহারে কী লেখা হয়েছে আমি তা পড়ে দেখিনি।
২০১৩ সালের ১৬ আগস্ট রাজধানীর মালিবাগের চামেলীবাগে নিজেদের বাসা থেকে পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (পলিটিক্যাল শাখা) ইন্সপেক্টর মাহফুজুর রহমান ও তার স্ত্রী স্বপ্না রহমানের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। মা-বাবা খুন হবার পর রহস্যজনকভাবে পালিয়ে যায় ঐশী। এ ঘটনায় ১৭ আগস্ট নিহত মাহফুজুর রহমানের ছোটভাই মো. মশিহুর রহমান রুবেল পল্টন থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। একই দিন ঐশী রহমান রমনা থানায় আত্মসমর্পণ করেন। একই বছরের ২৪ আগস্ট আদালতে খুনের দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেন ঐশী। ২০১৪ সালের ৯ মার্চ ঐশীকে প্রধান আসামি করে ৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক আবুল খায়ের।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন