জহির হোসেন এমএ’র পদত্যাগ

 

সাইফুদ্দীন মোহাম্মদ মামুন, টেকনাফ।কচুবনিয়া এমপি বদি সরকারী প্রাইমারী স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি সদ্য বাছাইকৃত টেকনাফ উপজেলা পর্যায়ে ‘শ্রেষ্ট বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী’ হিসাবে মনোনীত আলহাজ্ব জহির হোসেন এমএ পদত্যাগ করেছেন বলে জানা গেছে।
টেকনাফের ইতিহাসে এ ধরণের ঘটনা এটাই প্রথম।
১৩ আগস্ট তিনি লিখিতভাবে টেকনাফ উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে পদত্যাগ পত্র দাখিল করেন। টেকনাফ উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ের ডকেট নং-২৫৫, তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৭ মুলে পদত্যাগপত্র গ্রহণ করা হয়েছে।
পদত্যাগ পত্র দাখিল করার পর ১৪ আগস্ট তিনি বলেন “আমি মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে গড়া সৈনিক। আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে দলের আপদকালীন সময়ে দেশ ও সমাজের জন্য কি করেছি তা কারও অজানা নয়। যোগ্য নেতার সুযোগ্য কন্যা দেশরতœ জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়নে সর্বস্তরের দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে কাজ করেছি এবং আমৃত্যু করে যাব-ইনশাআল্লাহ।
রাজনীতির পাশাপাশি অবহেলিত এলাকার শিক্ষা উন্নয়নে আমার ভুমিকা সকলেরই জানা। বর্তমানে আমি কচুবনিয়া এমপি বদি সরকারী প্রাইমারী স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি। অতি সম্প্রতি “জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক ২০১৭” এ আমি শ্রেষ্ট এসএমসি হিসাবে প্রতিদন্ধিতা করেছিলাম। গত ৮ আগস্ট টেকনাফ উপজেলা শিক্ষা অফিসারের স্বাক্ষরিত একখানা চিঠি আমার হস্তগত হয়েছে। যার স্মারক নং-উশিঅ/টেক/কক্স/২০১৭/২৬২। এতে আমাকে ‘শ্রেষ্ট বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী’ হিসাবে মনোনীত করার উল্লেখ রয়েছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। আমি প্রতিদন্ধিতা করেছি শ্রেষ্ট এসএমসির জন্য, আর আমাকে বানানো হয়েছে ‘শ্রেষ্ট বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী’। এতে আমি ব্যক্তিগতভাবে অত্যন্ত দুঃখিত ও মর্মাহত। সেই সাথে আমি গভীরভাবে অপমান বোধ করছি। নিরুপায় হয়েই আমি এ ব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে পদত্যাগ পত্র দাখিল করেছি। পদত্যাগ পত্রের কপি কক্সবাজার জেলা প্রশাসক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে দাখিল করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন