জাতীয়তা ‘রোহিঙ্গা’ লেখার সিদ্ধান্তে নিবন্ধনে ব্যাপক সাড়া

 

গত ১৫ দিন ধরে ব্যাপক প্রচারণা চালিয়েও খুব একটা সাড়া মেলেনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিবন্ধনে। তবে শুক্রবার সকাল থেকে নিবন্ধন বুথগুলোতে দেখা যায় উপচে পড়া ভিড়।

হঠাৎ এত সাড়া পড়ার কারণ কী! মূলত নিবন্ধন কার্ডে জাতীয়তার ক্ষেত্রে ‘মিয়ানমার’ পাশাপাশি ‘রোহিঙ্গা’ লেখার সিদ্ধান্ত নেয়ার পরই সাড়া পড়ে শরণার্থীদের মধ্যে। এতদিন ধরে জাতীয়তা হিসেবে শুধু ‘মিয়ানমার’ লেখা হতো।

রোহিঙ্গারা নিজেদেরকে তাদের জাতিগত পরিচয়ে পরিচিত করতে চান। কিন্তু মিয়ানমার সরকার তাদের এই পরিচয় অস্বীকার করে। গত ২৫ আগস্ট নতুন করে সহিংসতা শুরুর আগ পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে ‘রোহিঙ্গা’ শব্দটি ব্যবহার করতো না বাংলাদেশ সরকার। শরণার্থীদের পরিচয় হিসেবে ‘মিয়ানমারের নাগরিক’ লেখা হতো।

তবে আজ শুক্রবার থেকে সরকারের সিদ্ধান্ত ‘রোহিঙ্গা’ শব্দটি নিবন্ধন কার্ডে লেখা থাকছে। নিজেদের পরিচয়ে আপাতত স্বীকৃতি পেয়েই আগ্রহী হচ্ছেন শরণার্থীরা।

হঠাৎ করে নতুন এই সিদ্ধান্ত নেয়ার কারণে পরিবর্তন ও সংশোধন করতে হবে আগের করা প্রায় ১০ হাজার নিবন্ধন কার্ড। সংশোধন কার্যক্রমও শুরু হয়েছে আজ থেকেই। অনেক শরণার্থীকে দেখা গেছে সংশোধনের জন্য লাইনে দাঁড়াতে।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন