টেকনাফে জেডিসি পরিক্ষায় এ+ পাওয়া লুবাবা আর্দশ মা হতে চাই

 

বার্তা পরিবেশক []
২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত জেডিসি পরিক্ষায় রঙ্গিখালী ফাজিল মাদ্রাসা হতে জারিফা ছিদ্দিকী লুবাবা অংশগ্রহণ করে এ+ পেয়েছে। সে টেকনাফ থানার ৭ জনের মধ্যে একজন এবং রঙ্গিখালী মাদ্রাসার ৪ জন এ+ পাওয়া শিক্ষার্থীর মধ্যে একমাত্র ছাত্রী।
গত ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় ও টেকনাফে ১১’শ পরিক্ষার্থীর মধ্যে একমাত্র গোল্ডেন এ+ পেয়েছিল এ মেধাবী ছাত্রী।
সে তার মরহুম দাদা হাজী অছিউর রহমান সাহেব এর মাগফেরাত কামনা করেন এবং স্বরণ করেন। তার দাদা ১৯৭৭ ইং সালে সর্বপ্রথম মূলধন হিসেবে ৪৮০ টাকা রঙ্গিখালী মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ড. গাজী কামরুল ইসলামের হাতে তুলে দিয়ে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার কাজে সার্বিক সহযোগিতা করেন এবং দাতা ও প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে ছিলেন। তার দাদার বিভিন্ন অবদানের ফসল।
এছাড়া এলাকার সর্বসাধারণ এক সাথে ঈদের নামাজ পড়ার জন্য ঈদগাহের জমি দান করে এলাকায় ভ্রাতৃত্বের ঐক্যের বন্ধন সৃষ্টি করে রসুল (স:) এর একটি গুরুত্বপূর্ণ সুন্নত জারী করে গেছেন।
রঙ্গিখালী অজপাড়া গাঁয়ে ড.গাজী কামরুল ইসলাম কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসার উদ্ধোধনী ছাত্র হিসেবে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া করে এলাকায় রঙ্গিখালী মাদ্রাসার প্রথম ফসল হিসেবে এলাকায় প্রথম “কামিল” প্রথম দুই বিষয়ে চট্টগ্রাম কলেজ ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হতে এমএ ও এল.এল.বি.পি.পাশ ডিগ্রীধারী।
তার পিতা কবির আহমদ ছিদ্দিকী সম্ভ্রান্ত, জমিদার ও শিক্ষানুরাগী পরিবারের যোগ্য উত্তরসূরী।
সে ভবিষ্যতে লেখাপাড়া করে চারিত্রিক গুণাবলি ও তাকওয়ার অনুসারী হয়ে জীবনযাপন করে আখিরাতে নাজাত কামনায় সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন