টেকনাফে ১ লাখ ইয়াবা উদ্ধারে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় পৃথক ৪টি মামলা : পাচারকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন

 

Yaba-1ioio-1bnbnনিজস্ব প্রতিবেদক -একাত্তর [] টেকনাফে ইয়াবা পাচারকারিদের সাথে বন্দুকযুদ্ধে বিজিবির দুই সদস্য গুলিবিদ্ধের ঘটনায় অপর পাচারকারী গুলিবিদ্ধ মিয়ানমারের নাগরিক রিয়াজুল হক (২০) কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এতে আহত বিজিবি সদস্যরা হল টেকনাফ সদর বিওপির সিপাহী হাবিবুর রহমান ও হাবিলদার লুৎফুর টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হওয়ার পর সুস্থ হয়ে ফিরেছে।

বিজিবি’র টেকনাফস্থ ৪২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল আবু জার আল জাহিদ জানান, উক্ত ইয়াবা আটকের ঘটনায় সরকারী কাজে বাধাদান,মাদক,বৈদেশিক নাগরিক আইনে  পৃথক ৪টি মামলা করা হয়েছে।

অবশ্য, বিজিবি সদস্যরা টেকনাফের নাফনদীস্থ আড়াই নম্বর সøুইচ গেইট এলাকায় যায়। এসময় বিজিবির অবস্থান টের পেয়ে ইয়াবা পাচারকারীরা বিজিবিকে লক্ষ্য গুলিবর্ষণ করে। পরে বিজিবি আত্ম-রক্ষার্থে পাল্টাগুলি চালায়। এক পর্যায়ে ইয়াবা পাচারকারীদের কয়েকজন পালিয়ে গেলেও গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মিয়ানমারের এক ইয়াবা পাচারকারীকে আটক করা হয় এবং তার কাছ থেকে ৯৬ হাজার ইয়াবা পাওয়া যায়। এসময় বিজিবির দুই সদস্য গুলিবিদ্ধ হন।
তিনি আরো জানান, আটক রিয়াজুল হককে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় ইয়াবাগুলো মিয়ানমার থেকে আনা হচ্ছিল টেকনাফের মৌলভীপাড়ার নুরুল ইসলামের পুত্র মো: গফুরের জন্য। এব্যাপারে রিয়াজুল হক ও মো: গফুরের নামে টেকনাফ থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন