দু’দিনে ৩ পুত্র সহ ৯ কোটি টাকার বাবা আটকের ঘটনায় মামলা ৪

 

খাঁন মাহমুদ আইউব[]
কক্সবাজার’র টেকনাফে পর পর ২ দিনে ৯ কোটি টাকার অধিক ইয়াবা বড়ি আটক করেছে বিজিবি টহল টিম।এসময় পাচার কাজে জড়িত থাকার অপরাধে ৩ জন বর্মী নাগরিক কে আটক পরবর্তী পৃথক ৪ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
গত ১০ জুলাই উপজেলার পৌরসভার দক্ষিন জালিয়া পাড়া এলাকায় নাজির পাড়া বিওপি’র হাবিলদার নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে রাত সাড়ে ৯ টা নাগাদ সীমান্ত পাড়ি দিয়ে অনুপ্রবেশ কালীন ৩ টি ব্যাগ তল্লাশী করে ৩ কোটি ৩০ লক্ষ টাকার ১ লক্ষ ১০ হাজার পিস ইয়াবা বড়ি আটক করেছে জওয়ানরা।এইসময় ২ জন পাচারকারী কে আটক করে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এদিকে গত ১১জুলাই দমদমিয়া বিওপির হাবিলদার লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে সদর ইউনিয়নের আলু গূলার স্লুইচ গেইট এলাকা দিয়ে অনুপ্রবেশ কালীন মংডু সুদার পাড়া এলাকার মৃত সুলতানের পুত্র মোহাম্মদ রফিক (৩৫) কে ৫ কোটি ৯৬ লক্ষ ৭১ হাজার ৮শ পিস ইয়াবাসহ আটক করেছে।গত দু’দিনে ৯ কোটি ২৬ লক্ষ ৭১ হাজার ৮শ টাকা মূল্যের ৩ লক্ষ ৮৯ হাজার ৬ পিস ইয়াবা বড়ির চালান আটকের বিষয় টি বিজিবি টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল এস এম আরিফুল ইসলাম সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।উক্ত ঘটনায় আটক দু’জন পাচারকারীকে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করে টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্রটি।এদিকে বিষয়টি আবারো টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়ে ভাবিয়ে তুলেছে সুধী সমাজকে।সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে বিজিবি’র সমন্বয়ে মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত রেখে আরো জোড়ালো করার জন্য যৌত ট্রাস্কফোর্স গঠন করে ইয়াবা দমনে সরকারের জিরো ট্রলারেন্স নীতির বাস্তবিক রূপায়নে ভূমিকা রাখার জন্য দাবী জানিয়েছেন।অন্যতায় ইয়াবা ট্যাবলেটের বিকাশ ও আমদানী রোধ করা কিছুতেই সম্ভব নয় বলে মত ব্যক্ত করেছেন জেলার আপামর জনসাধারন।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন