প্রভাবশালীদের দখলে টেকনাফের কায়ুকখালী খাল

 

333
ফরহাদ আমিন []
প্রভাবশালী ও লোভী দখলদারদের অনবরত দখলের ফলে ক্ষীণ হয়ে যাচ্ছে টেকনাফ পৌর এলাকার ঐতিহ্যবাহী কায়ুকখালী খাল। এই খালটি কোন রকমে বেচে থাকলেও নতুন করে আবারও দখলের কবলে পড়েছে। ফলে কায়ুকখালীর বেচে থাকা নিয়েও দেখা দিয়েছে সংশয়। এ যেন উন্মুক্ত প্রতিযোগীতা চলছে কে কতটা দখল করে নিতে পারে। অথচ এই কায়ুকখালী খালটির রয়েছে সুদীর্ঘ ঐতিহ্য। এক সময় যাতায়াত ও ব্যবসা বানিজ্যের প্রানকেন্দ্র ছিল এই কায়ুকখালী খাল।

এর আগে এ খালটিকে কেন্দ্র করে জীবিকা নির্বাহ করে টেকনাফের বাঁশ ব্যবসায়ী ও মৎস্যজীবিদের বড় একটি অংশ। তাছাড়াও এই খাল দিয়ে বর্ষায় অলিয়াবাদ, ইসলামাবাদ, কে,কে পাড়াসহ অনন্ত ২০ গ্রামের বৃষ্টির পানি প্রবাহিত হয় ।
কিন্তু দখলবাজদের কবলে পড়ে অতি গুরুত্বপূর্ন এ খালটি হারাতে বসেছে ইতিহাস। দখলের কারণে পৌর এলাকায় বিদ্যমান জলাবদ্ধাতা তীব্র হওয়ার আশঙ্কাও দেখা দিয়েছে।

সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, পৌরসভার প্রধান সড়ক সংলগ্ন কায়ুকখালী ব্রীজের পাশে খালের প্রায় ১০০ ফুট অংশ পাথর ফেলে ও মাটি দিয়ে ভরাট করে দখল প্রক্রিয়া চালাচ্ছে মো. সৈয়দ আলম নামে এক ব্যক্তি। প্রশাসনের নাকের ডগায় ও পৌর ভবনের দুই শ গজের মধ্যে এ দখল প্রক্রিয়া চললেও কেউই তাকে বাধা প্রদান করছে না। এ নিয়ে এলাকায় তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

দখলকারী মো. সৈয়দ আলমের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, খালের পাশের ৩৫ শতক জমির ক্রয় সূত্রে মালিক তিনি। তার জমিতেই তিনি মাটি ফেলে সংস্কার করছেন বলে জানান।

এদিকে অতি শীঘ্রই খাল দখল বন্ধে উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) জাহিদ ইকবাল প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানালেও দখলদার চক্র তাদের দখল প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছে।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন