রাজাখালীতে মা-মেয়ের উপর ইভটিজারদের সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় অবশেষে থানায় মামলা,জড়িতরা ধরাছোঁয়ার বাইরে!

 

pic pekua 28-05-15 (2)
স্টাফ রিপোর্টার,পেকুয়া.
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নে ইভটিজারদের সন্ত্রাসী হামলায় অসহায় মা-মেয়ে আহতের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। যার মামলা নং-২৩/১৫। এদিকে, মামলা রুজু হওয়ার খবর পেয়ে ঘটনায় জড়িতরা গ্রেফতার এড়াতে এলাকা ছাড়ার পাশাপাশি ঘটনাটি ধামাচাঁপা দিতে মরিয়া হয়ে পড়েছে বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। ঘটনাটি ঘঠেছিল, গত ২০মে বুধবার বেলা ১২টায় উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের রব্বতআলী পাড়া এলাকায়। এঘটনায় এলাকায় দেখা দিয়েছে তীব্র মিশ্র প্রতিক্রিয়া। জানা যায়, গ্রামটির সবুজবাজারে ফার্মের মুরগী ও কাঁচা তরকারী ব্যবসায়ী মোঃ নুরুল ইসলামের বড় মেয়ে শাহেনা বেগম(১৭) স্থানীয় এয়ার আলী খাঁন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণীতে অধ্যয়নরত ছিলো। স্থানীয় প্রভাবশালী প্রতিবেশী জাফর আহমদের পুত্র মোঃ আলমগীর(২০) ওই ছাত্রীকে প্রতিনিয়ত স্কুলে যাওয়া আসার পথে উত্তক্ত করতো। স্কুল ছাত্রী শাহেনা বেগম বিষয়টি তার অভিবাবকদের জানালে অভিভাবকরা স্থানীয় সমাজপতিদের স্মরণাপন্ন হয়ে অবহিত করে ঘটনার প্রতিকার চেয়ে সামাজিক বিচার দাবী করেন। এনিয়ে পাড়ালিয়া গণ্যমান্য সমাজপতিরা শালিষী বৈঠকে বসে নন্ জুড়িশিয়াল অলিখিত ষ্ট্যাম্পে দু’পক্ষের স্বাক্ষর নিয়ে সমঝোতা আপোষের প্রতিশ্রুতিও দেন। কিন্তু চোরে না শোনে ধর্মের বাণী। তারপরেও অভিযুক্ত বখাটে ছাড়েনি ওই স্কুল ছাত্রীর পিছু। একপর্যায়ে বখাটে আলমগীরের ইভটিজিং ঠেকাতে ব্যর্থ হয়ে তার পরিবার শাহেনা বেগমকে বাধ্য হয়ে স্কুলে যাওয়া আসা বন্ধ করে দেন। কিন্তু এতেও কোন কাজ হয়ান। ফলে, শেষ পর্যন্ত গত ২০মে বেলা আনুমানিক ১২টার দিকে ওই অসহায় স্কুল ছাত্রী শাহেনা বেগম স্থানীয় প্রতিবেশীর নলকুপে পানি সংগ্রহের জন্য যায়। এসময় অভিযুক্ত বখাটে আলমগীর শাহেনা বেগমকে একা দেখতে পেয়ে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি ও কটুক্তি করে। এসময় বখাটের আচরনের কোন জবাব না দিয়ে ভুক্তভুগী কিশোরী চুপচাপ বাড়ি ফিরে যাওয়ার প্রস্তুতি নেয়। তখন অভিযুক্ত বখাটে আলমগীর অসহায় স্কুল ছাত্রী শাহেনা বেগমকে টানা হেঁচড়া করে অপহরনের চেষ্টা চালায়। তখন কিশোরী স্কুল ছাত্রী আত্মরক্ষার্থে ধস্তাধস্তি শুরু করলে কিশোরী ও বখাটে আলমগীরের মধ্যে বচসা হয়। এসময় ওই কিশোরী স্কুল ছাত্রীর চেচামেচীতে বখাটে আলমগীরের পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। একপর্যায়ে বখাটে আলমগীর পরিবারের নুর কাদের, ছাবের আহমদ, শফিউর রহমান, জাফর আহমদ, ফজল কাদেরের নেতৃত্বে একদল লোক ধারালো কিরিচ, লোহার রড ও লাঠিশোটা নিয়ে ওই কিশোরী স্কুল ছাত্রী শাহেনা বেগমকে বেদম পিঠিয়ে তাদের ঘরে তুলে নেয়ার চেষ্টায় চালায়। তখন আক্রান্ত স্কুল ছাত্রী শাহেনা বেগম শৌর চিৎকার শুরু করলে বখাটে আলমগীর তার হাতে থাকা ধারালো লম্বা কিরিচ দিয়ে ওই স্কুল ছাত্রীর প্রাণনাশ চেষ্টায় স্কুল ছাত্রীর মাথা লক্ষ্য করে সজোরে আঘাত করলে সে সড়ে দাড়ানোয় তার মাথার নীচে কপালের ডান পাশের্^ কাটা ছেড়া রক্তাক্ত জখম হয়ে মাটিতে লুাঠয়ে পড়ে। পরে, সংঘবদ্ধ অন্যরাও ওই স্কুল ছাত্রীকে অতর্কিত কিল, ঘুষি, লাথি মারতে থাকায় ঘটনাস্থলেই স্কুল ছাত্রী গুরুতর আহত হন। প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা বিষয়টি তাৎক্ষনিক শাহেনা বেগমের মা আমেনা বেগমকে অবহিত করলে তিনি দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। এসময় হামলাকারীরা তার উপরও সন্ত্রাসী হামলা চালালে প্রাণরক্ষার্থে তিনি দৌড়ে বাড়ির দিকে চলে যান। তখন তারাও পিছু নিয়ে স্কুল ছাত্রী শাহেনার বসতঘরে অবৈধ অনুপ্রবেশ করে ব্যাপক তান্ডব ও লুঠপাঠ চালিয়ে ১ভরি ওজনের গলার স্বর্ণের চেইন সহ লকেট ও ৮আনা ওজনের কানের দুল, স্যামসাং ব্র্যান্ডের ২ট ২৮হাজার টাকা মূল্যের মোবাইল ও বসতঘরের খাটের বালিশের নীচে রক্ষিত নগদ ৩২হাজার টাকা সহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যান। পরে, স্থানীয়রা বিষয়টি শাহেনার পিতাকে অবহিত করলে তিনি দ্রুত বাড়ি ফিরে তার আহত স্ত্রী আমেনা বেগম(৩৫) ও মেয়ে শাহেনা বেগম(১৭)কে উদ্ধার করে পেকুয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করান। এদিকে, এঘটনার সমঝোতায় স্থানীয় গণ্যমান্যদের স্মরণাপন্ন হলে তারা আক্রান্ত পরিবারকে প্রলোভনের ফাঁদে আটকিয়ে থানা পুলিশ বা আইনের আশ্রয় থেকে বিরত রেখে দু’পক্ষের লোকজন নিয়ে একাধিক বৈঠকে বসলেও ঘটনায় জড়িতদের একগুয়েমির কারণে আপোষরফা সম্ভব হয়নি। পরে, ইভটিজারদের সন্ত্রাসী হামলায় অসহায় মা-মেয়ে আহতের ঘটনা ধামাচাঁপা দিতে মরিয়া হওয়ার অভিযোগ তুলে স্কুল ছাত্রী শাহেনা বেগমের পিতা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এখন উল্টো তাদের সামাজিক ভাবে ফাঁসানোর ষড়যন্ত্র মিথ্যাচারে মেতে উঠেছেন ঘটনায় জড়িতরা। এনিয়ে তিনি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান। পেকুয়া থানার ওসি মোঃ আবদুর রকিব ইভটিজারদের সন্ত্রাসী হামলায় অসহায় মা-মেয়ে আহতের ঘটনায় থানায় এজাহার দায়ের সূত্রে প্রাথমিক তদন্ত সম্পন্ন করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে গতপরশু ২৯মে রাতে নিয়মিত মামলা রুজু করেছে পুলিশ। যার মামলা নং-২৩/১৫। সেই সাথে ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন