রাজাখালীতে মা সমাবেশ অনুষ্টিত

 

teknafnews71 (58)এস.এম.ছগির আহমদ আজগরী
পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ এর রাজাখালী পালাকাটা কমিউনিটি গ্রুপ এর উদ্দ্যেগে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা (পিএইচডি) এর সহযোগিতায় এ সমাবেশ অনুষ্টিত হয়েছে। গতকাল বৃহষ্পতিবার রাজাখালী এয়ার আলী খাঁন উচ্চ বিদ্যালয়ের হল রুমে সকাল ১০টায় পালাকাটাকা মিউনিটি ক্লিনিকের সভাপতি ও রাজাখালী ৮নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য শহিদ হোছাইন সাইফুল্লাহ’র সভাপিতত্বে অনুষ্টিত মা সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্তিত ছিলেন পেকুয়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফা হায়দার রনি। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পেকুয়া উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেজাউল করিম, পেকুয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব সাংবাদিক এম.দিদারুল করিম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজমগীর চৌধুরী, উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শক নিরঞ্জন দাশ, সহকারী পরিদর্শক সরওয়ার আলম, সাংবাদিক মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন ও উপজেলা কৃষি অফিসের সহকারী মাঠকর্মকর্তা ইমাম হোসেন। উক্ত সমাবেশে বিনামূল্যে গর্ভবতী মহিলাদের ফ্রি হিমুগ্লোবিন, সুগার, রক্তের গ্রুপ ও চেকআপ করা হয়। ফ্রি চিকিৎসা সেবা নেওয়া গর্ভবতী মহিলাদের পেকুয়া উপজেলা স্বস্থ্য কমপ্লেক্সের সহায়তায় বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় ঔষধ বিতরণ করা হয়েছে। এ সেবা প্রদান কালে অনুষ্টিত মা সমাবেশস্থলে ২টি চেকআপ ও রোগ নির্নয়ের জন্য ১টি পরীক্ষা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। অনুষ্টান পরিচালনা করেন পিএইচডি’র ফিল্ড কো-অরডিনেটর তাওহিদুল ইসলাম।
পেকুয়ায় শতাধিক ব্যবসায়ীদের মাঝে উচ্ছেদ আতংকে!
এস.এম.ছগির আহমদ আজগরী,পেকুয়া(কক্সবাজার)হইতে সংবাদদাতা.
কক্সবাজারের পেকুয়ায় উপজেলায় প্রায় কয়েক শতাধিক ব্যবসায়ীদের মাঝে উচ্ছেদ আতংক দেখা দিয়েছে। এনিয়ে শংকিত ব্যবসায়ীরা ক্ষতি পূরণ প্রদান ও পূর্ণবাসন নিশ্চিত করা ছাড়া সওজ’র উচ্ছেদ অভিযান বন্ধে সরকার ও সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে মানবিক সহায়তা কামনা করেছেন। ঘটনাটি ঘঠেছে, উপজেলার আঞ্চলিক মহাসড়ক(এবিসি) সংগ্লন্ন এলাকায়। জানা যায়, সম্প্রতি সওজ’র পক্ষ থেকে গুঞ্জন উঠে। ফলে, বিষয়টি নিয়ে ওই সড়ক সংগ্লন্ন এলাকার শত শত ব্যবসায়ীরা পড়েন আতংক আর বিপাকে। স্থানীয় টইটং বাজার ব্যবসায়ী সমিতি, হাজির বাজার বণিক সমিতি, ধনিয়াকাটা ষ্টেশন ব্যবসায়ী সমিতি, পেকুয়া কলেজ গেইট চৌমুহুনী ব্যবসায়ী সমিতি ও পেকুয়া উপজেলা ভাসমান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী-হকার সমিতি সংশ্লিষ্ট শতাধিক ব্যবসায়ীদের দোকানপাট ও বিনিয়োগকৃত পুঁজি হারানো উচ্ছেদ আতংকেয় মাঝে ফেলে দিয়েছে বলে সাংবাদিকদের কাছে জানান। এনিয়ে পেকুয়ার টইটং ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সভাপতি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের ৫-৫বার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও প্যানেল চেয়ারম্যান-১ কবির আহমদ এম.ইউ.পি গতকাল ২৩এপ্রিল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত ও মতবিনিময় করে পেকুয়ার এবিসি(আঞ্চলিক)মহাসড়ক সংগ্লন্ন এলাকার নিরহ ব্যবসায়ীদের কোন ধরনের ক্ষতিপূরণ ও পূর্ণবাসন ছাড়াই সওজ’র অতর্কিত উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনার ঘোষনার তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে অভিলম্বে সওজ’র অতর্কিত উচ্ছেদ অভিযান স্থগিত করতে সর্বস্তরের ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বরাবরে আবেদন জানিয়েছেন।
পেকুয়ায় দু’দিনের কাল বৈশাখীর ঝড়ের হানায় শতাধিক বসতঘর ও লবন মাঠের প্রজেক্ট বসতির ক্ষয়ক্ষতি
এস.এম.ছগির আহমদ আজগরী,পেকুয়া(কক্সবাজার)হইতে সংবাদদাতা.
পেকুয়ায় গত দু’দিনের কাল বৈশাখী ঝড়ের তান্ডবে শতাধিক বসতঘর ও লবন প্রজেক্টের ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। এতে বাড়িঘর, লবন মাঠ ও ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে আক্রান্তরা। এছাড়া, বৈদ্যূতিক লাইনের ক্ষয়ক্ষতি হওয়ায় গত দুদিন ধরে পুরো পেকুয়া উপজেলায় বিদ্যূৎ সরবরাহ প্রায় বন্ধ হয়ে পড়েছে। ফলে, গত দু’দিনের কাল বৈশাখীর ছোবলে আক্রান্ত পেকুয়ার জনজিবনে দেখা দিয়ে চরম বিড়ম্ভনা ও অচলাবস্থা। ঘটনাটি ঘঠেছে, গতপরশু বুধবার রাতে। জানা যায়, এদিন জেলা জুড়ে কাল বৈশাখীর ঝড় হানা দেয়। অতর্কিত এ ঝড়ে উপজেলার উজানটিয়া, মগনামা, রাজাখালী, টইটং, শিলখালী, বারবাকিয়া ও পেকুয়া সদর ইউনিয়নের শতাধিক বাড়িঘর, দোকানপাট ও নানা স্থাপনা বা তার চালা উপড়ে নিয়ে যায়। এসময় উপজেলার লবন মাঠের প্রজেক্ট বসতিগুলোও কাল বৈশাখীর ছোবলে উপড়ে যায়। উজানটিয়া ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি এম. তোফাজ্জল করিম, করিয়ারদিয়া ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আ’লীগ নেতা নিরাজুল মোস্তফা এপ্রতিবেদককে জানিয়েছেন, ওইদিনের কাল বৈশাখী ঝড়ে তাদের গ্রামের প্রায় অর্ধশতাধিক বাড়িঘর ও দোকানপাট ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান এটিএম শহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, কাল বৈশাখীর ছোবলে তার গ্রামের নুরীরপাড়া, মালেকপাড়া, ফকিরপাড়া, মধ্যম উজানটিয়া, পেরাসিংগাপাড়া, ভেলুয়াপাড়া, ঘোষালপাড়া ও মিয়ারপাড়ায় প্রায় অর্ধ-শতাধিক বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্থ্য হওয়ায় তিনি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে তৎবিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে অবহিত করেছেন। রাজাখালী ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, দু’দিনের কাল বৈশাখী ঝড়ের হানায় তার গ্রামের অধিকাংশ লবন মাঠের প্রজেক্ট ঘর সহ বেশ কিছু বসতির ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়। শিলখালী ইউপি’র ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ বাদশা মিয়া জানিয়েছেন, গত বুধ ও বৃহস্পতিবার রাতের কাল বৈশাখী ঝড়ে তার এলাকায় সাবেক মেম্বার জামাল হোসাইন, ব্যবসায়ী মাছ কামাল, ভেডভেডীপাড়া গুরাঘোনা এলাকার মুখতার আহমদ কালু নামের এক ব্যক্তির সহ প্রায় ১০/১৫টি বসতভিটার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মারুফুর রশিদ খান বুধ ও বৃহস্পতিবার রাতের কাল ্ৈবশাখীর ঝড়ে বিভিন্ন ইউনিয়নে ক্ষয়ক্ষতির খবর পেয়ে ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তার বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ইউপি চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্টদের নির্দ্দেশ দিয়েছেন বলে জানান।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন