রোহিঙ্গাদের চিকিৎসায় সার্বিক পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার – উখিয়ায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী

 

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা ও প্রাণ বাঁচাতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সরকার। এ পর্যন্ত ৬ লাখ ৬৪ হাজার রোহিঙ্গার কলেরা ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোসহ এমআর টিকা প্রদান অব্যাহত রাখা হয়েছে। ৯২ ভাগ রোহিঙ্গার ডিপথরিয়ার টিকা প্রদান করা হয়েছে। নতুন করে আর কেউ ডিপথরিয়ায় আক্রান্ত হবে না, হলেও চিকিত্সা প্রদান করা হবে।


গতকাল উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের চিকিত্সা সেবায় গঠিত তিনটি মেডিক্যাল ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। উখিয়ার বালুখালী-১ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্প, রাবার বাগান রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও বালুখালী ময়নারঘোনা রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত মেডিক্যাল ক্যাম্প পরিদর্শনকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঘুরে ঘুরে চিকিত্সক, স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা এবং রোগীদের সঙ্গে কথা বলেন। বিদেশিদের সহায়তায় রোহিঙ্গাদের চিকিত্সা প্রদান করা হচ্ছে। মন্ত্রীর সঙ্গে বিদেশি সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক ডা. মুজিবুল হক, সাবেক স্বাস্থ্য সচিব সিরাজুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা. আব্দুস সালাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিকারুজ্জামান, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মেজবাহ উদ্দিন আহমদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে, ফল মানতেও বাধ্য হবে

বিশেষ প্রতিনিধি জানান, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি শুধু অংশগ্রহণই করবে না, নির্বাচনের ফলও তারা মেনে নেবে, মেনে নিতে বাধ্য হবে। গতকাল রবিবার রাজধানীর গুলশানে স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত চাইল্ড পার্লামেন্টের অধিবেশনে অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ীই হবে। এর বাইরে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা ও ?সুযোগ নেই। সেই নির্বাচন ঠেকানোর ক্ষমতা কারও নেই। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বিএনপি ঠেকাতে চেয়েছিল কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়েছিল।

চাইল্ড পার্লামেন্টে ‘কিশোরীর পুষ্টি এবং স্বাস্থ্য ও শিক্ষা সেবা জবাবদিহিতা’ বিষয়ে আলোচনা হয়। এটি পরিচালনা করেন পার্লামেন্টের স্পিকার মেহতাহুন নাহার। পার্লামেন্টের ১৬তম অধিবেশনে দেশের প্রতিটি জেলা থেকে একজন করে প্রতিনিধি অংশ নেন।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন