শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসেও অনশন ভাঙলেন না শিক্ষকরা

 

এমপিওভুক্তির দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকদের অনশন ভাঙাতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে উপস্থিত হয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করা হবে বলে আশ্বাস দেন। তবে সুনির্দিষ্ট সময়সীমা ছাড়া দেওয়া এই আশ্বাস প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষকরা।আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টায় মন্ত্রী প্রেসক্লাবের সামনে যান। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোহরাব হোসাইন তার সঙ্গে আছেন।

এ সময় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘নীতিমালা তৈরির কাজ চলছে, অর্থ মন্ত্রণালয় এবং আইন মন্ত্রণালয়সহ বসে আমরা আপনাদের এমপিওভুক্ত করবো।’তখন অনশনরত শিক্ষকদের নির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণার দাবির প্রেক্ষিতে নাহিদ বলেন, ‘বর্তমানে অর্থমন্ত্রী দেশের বাইরে আছেন। তবে যাওয়ার আগে তিনি অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে এমপিওভুক্তির বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছেন, আমরা কাজ করছি।’শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষকরা আমাদের শিক্ষা পরিবারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। তারা আমাদের নয়নের মনি। আমি এই পরিবারের একজন কর্মী। আমাদের সম্পদের সীমাবদ্ধতা আছে, আশা করি আপনারা বিষয়টা বুঝবেন। আশা করি আপনাদের এমপিওভুক্ত করা হবে।’তবে শিক্ষামন্ত্রীর এই আশ্বাস না মেনে সুনির্দিষ্ট ঘোষণা ছাড়া অনশন ভঙ্গ না করার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষকরা।নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সদস্য রাশেদুল ইসলাম রাশেদ বলেন, ‘আমরা কোন সুনির্দিষ্ট ঘোষণা না পাওয়া পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাব। এ পর্যন্ত আমাদের ৩৩ জন শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার মধ্যে তিনজন এখনও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসা নিচ্ছে।’এমপিওভুক্তির দাবিতে দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে আন্দোলন করে আসছেন নন-এমপিও শিক্ষকরা। আমরণ অনশন ও অবস্থান ধর্মঘটের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর কাছে বিভিন্ন সময়ে স্মারকলিপি দিয়েছেন তারা। তবুও ২০১৬-১৭ আর ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে নন-এমপিও শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি অথবা বাড়তি ভাতার ব্যবস্থা করতে কোন বরাদ্দ রাখা হয়নি।এ কারণে গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান নিয়েছেন নন-এমপিও শিক্ষকরা। তাদেরকে ঘরে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করে ৩১ ডিসেম্বর থেকে আমরণ অনশন করেন তারা।নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের ডাকে এই কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

 
 
 

0 মতামত

আপনিই প্রথম এখানে মতামত দিতে পারেন.

 
 

আপনার মতামত দিন