অনলাইন নীতিমালা নিয়ে নতুন বার্তা’র সরকার বিরোধী উস্কানীমুলক রিপোর্ট : বনপা’র তীব্র প্রতিবাদ

bonpa-logo-Copy.jprewrewg451_1

প্রেসবিজ্ঞপ্তি: জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা-২০১৫ নিয়ে নতুন বার্তা ডটকমের রিপোর্টকে সরকার বিরোধী উস্কানীমুলক রিপোর্ট আখ্যায়িত করে বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোটাল এ্যাসোসিয়েশন বনপা’র সভাপতি ও জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম খসড়া ণীতিমালা কমিটি-২০১২’র অন্যতম সদস্য শামসুল আলম স্বপন তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন। প্রতিবাদ লিপিতে বনপা’র সভাপতি উল্লেখ করেন বুধবার বিকেলে তথ্যমন্ত্রণালয়ের প্রধান তথ্যকর্মকর্তা তছির আহম্মাদের সভাপতিত্বে জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা-২০১৫ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন পিআইবি’র মহাপরিচালক শাহ আলমগীর,প্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার, বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোটাল এ্যাসোসিয়েশন বনপা’র সভাপতি শামসুল আলম স্বপন, আইএনবি’র প্রধান সম্পাদক ব্যারিষ্টার জাকির আহম্মেদ, বিএফইউজের’র সহ-সভাপতি ড.উৎপল সরকার, বিটিআরসি’র সেক্টোরী সরওয়ার আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক মফিজুর রহমান,বিটিআরসি’র পরিচালক মোল্লা মো: জুবায়ের, ভিনিউজের সম্পাদক জয়ন্ত আচার্য প্রমুখ। উক্ত সভায় : জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা-২০১৫ নেতৃত্বে ৬ সদস্যের উপ-কমিটি কতৃক প্রণীত : জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম খসড়া নীতিমালা-২০১৫ উপস্থাপন করা হয়। সভার শুরুতে প্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার স্বাগত বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, আগামী দিন অনলাইনের । তাই আমরা সব কিছু বিবেচনা করে অনলাইন ণীতিমালার খসড়া প্রস্তত করে মূল কমিটির কাছে উপস্থাপন করলাম। তিনি বলেন, আমরা অনলাইন নিউজ পোটাল রেজি: নেয়ার ক্ষেত্রে সরকারকে কোন টাকা পয়সা দিতে হবে না ।তবে নীতিমালায় কিছু বাধ্যবাধকতা রাখা হয়েছে যাতে যে কেউ ইচ্ছে করলে নিউজ পোটাল রেজি: না পায়।তিনি বলেন
এরপরও যদি আরো ভালো নিয়ম নীতি সংযোজন করার প্রয়োজন দেখা দেয় সেক্ষেত্রে আরেকটি বৈঠক অথবা একাধিক বৈঠক হতে পারে। বনপা’র সভাপতি শামসুল আলম স্বপন তার বক্তব্যে বলেন অনেক নিউজ পোটাল অশ্লীলতা ছড়াচ্ছে, জঙ্গিবাদ উষ্কে দিচ্ছে, সরকার বিরোধী ভুমিকা রাখছে তাদের চিহ্নত করতে হবে । এমন নিউজ পোটালকে অনুমোদন দেয়া যাবে না। অন্যান্য বক্ততারা খসড়া নীতিমালার ভুয়োসী প্রশংসা করে বক্তব্য রাখেন।
কিন্ত নতুন বার্তা ডটকম এর সাংবাদিক ইমদাদুল হক সম্পূর্ণ মিথ্যা,বানোয়াট,বিভ্রান্তিমুলক রিপোর্ট প্রকাশ করে প্রকারন্তরে সরকারের বিরুদ্ধে অনলাইন সাংবাদিকদের উষ্কে দিয়েছে।তিনি বলেন যে মুহুর্ত স্বাধীনতা বিরোধীরা সরকারের বিরুদ্ধে তৎপর সেই মুহুর্ নতুন বার্তা ডটকম অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা নিয়ে চক্রান্তমুলক রিপোর্ট প্রকাশ করে তারা অনলাইন নিউজ পোর্টাল মালিক ও সাংবাদিকদের জনপ্রিয় সরকারের বিরুদ্ধে উষ্কে দিয়েছে। আমরা বনপা’র পক্ষ থেকে ওই নিউজ পোর্টালের সাংবাদিক ও নতুন বার্তা ডটকমের সম্পাদকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবি জানাচ্ছি।

নতুন বার্তা ডটকম এর অপসাংবাদিকতার জ্বলন্ত উদাহরণ নীচের রিপোর্টটি
যা ০৭/০১/১৫ তারিখ প্রকাশ করা হয়েছিল:

চলতি মাসেই অনলাইন নীতিমালা

ইমদাদুল হক
নতুন বার্তা ডটকম
ঢাকা: গৃহীত হলো অনলাইন নীতিমালার খসড়া। প্রধান তথ্য কর্মকর্তা তছির আহমেদের সভাপতিত্বে বুধবার তথ্য মন্ত্রণালয়ের মিডিয়া সেন্টারে অনুষ্ঠিত ‘জাতীয় রেগুলেটরি কমিটি’র সভায় এই খসড়া নীতিগতভাবে গ্রহণ করা হয়।

উপ-কমিটির তৈরি করা খসড়াটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে বৈঠকে ভাষাগত বা টেকনিক্যাল বিষয়টি খতিয়ে দেখতে কমিটিকে ১০ দিনের সময় দেয়া হয়েছে। মূল্যায়ণ শেষে চলতি মাসেই চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হবে অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১২।
নীতিমালার খসড়া অনুমোদন বিষয়ে নীতিমালা মূল্যায়ণ কমিটির আহ্বায়ক মোস্তফা জব্বার নতুন বার্তা ডটকমকে জানিয়েছেন, আগামী ১০ কার্যদিবসের মধ্যেই ১৩ সদস্যসের কমিটি বসে নীতিমালাটি চূড়ান্ত করবে।

এর আগে গত এপ্রিলে মোস্তফা জব্বার নেতৃত্বাধীন ছয় সদস্যের একটি উপকমিটি প্রধান তথ্য কর্মকর্তার কাছে এই খসড়াটি জমা দিয়েছিলো।

অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১২ শীর্ষক এই খসড়া নীতিমালা অনুযায়ী, অনলাইন গণমাধ্যম প্রকাশের জন্য লাইসেন্স নেয়ার সময় ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে এককালীন পাঁচ লাখ টাকা তথ্য মন্ত্রণালয়ে জমা দিতে হবে। প্রতিবছর ৫০ হাজার টাকা দিয়ে লাইসেন্স নবায়ন করা যাবে। লাইসেন্স নবায়ন ফি পুনর্নির্ধারণের সুযোগ থাকবে সরকারের।
অনুমোদিত খসড়া বলা হয়েছে, অনলাইন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠার জন্য বিজ্ঞপ্তি দেবে তথ্য মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে অফেরতযোগ্য ৫ হাজার টাকার ব্যাংক ড্রাফট/পে-অর্ডার জমা দিয়ে আবেদনপত্র সংগ্রহ করা যাবে।

আবেদনের সঙ্গে ফেরতযোগ্য দুই লাখ টাকার ব্যাংক ড্রাফট/পে-অর্ডার দিতে হবে। লাইসেন্স দেয়ার সময় এই টাকা জামানত হিসাবে বিবেচিত হবে। অনুমোদন পাওয়ার এক বছরের মধ্যে সম্প্রচারে যেতে না পারলে লাইসেন্স বাতিল করা হবে বলে খসড়ায় বলা হয়েছে।

কোনো অনলাইন গণমাধ্যমের মালিক/পরিচালক সরকারের অনুমতি সাপেক্ষে একাধিক অনলাইনের মালিক/পরিচালক হতে পারবেন বলেও খসড়ায় উল্লেখ রয়েছে।

সরকারের অনুমোদন ছাড়া লাইসেন্স বা শেয়ার সম্পূর্ণ বা আংশিক হস্তান্তর করা যাবে না উল্লেখ করে খসড়ায় বলা হয়েছে, নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে চুক্তি করে সরকারি কোষাগারে দুই লাখ টাকা ফি দিয়ে লাইসেন্স বা শেয়ার হস্তান্তর করা যাবে। আর লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠানকে অনলাইন গণমাধ্যমে প্রচারিত বিজ্ঞাপন বাবদ প্রাপ্ত অর্থের দুই শতাংশ সরকারি কোষাগারে জমা দিতে হবে।

অনলাইন গণমাধ্যমের সম্পাদকের শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যূনতম স্নাতক/সমমানের হতে হবে বাধ্যবাধকতা রেখে খসড়ায় বলা হয়, সম্পাদক হতে গেলে প্রথম শ্রেণির পত্রিকায় দুই বছরের কাজের অভিজ্ঞতাও থাকতে হবে।

সম্প্রচারিত বিষয়গুলোর রেকর্ড ৯০ দিন পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে হবে বলেও খসড়ায় উল্লেখ করা হয়েছে। অনলাইন গণমাধ্যম স্থাপন ও পরিচালনায় তথ্য সচিবের নেতৃত্বে ১৩ সদস্যের ‘জাতীয় রেগুলেটরি কমিটি’ এবং তদারকির জন্য তথ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিবের নেতৃত্বে আরেকটি কমিটি গঠনের সুপারিশ করেছে মোস্তফা জব্বার নেতৃত্বাধীন উপকমিটি।

নতুন বার্তা/আইএইচ/জিহ

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।