কাটাবনিয়া থেকে ২২ কোটি ২০ লক্ষ টাকার ইয়াবা উদ্ধার

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ
টেকনাফের সাবরাং কাটাবনিয়া থেকে বিজিবি ২২ কোটি ২০ লক্ষ টাকা মুল্যের ৭ লক্ষ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে বলে জানা গেছে। তবে এ অভিযানে ইয়াবা চোরাকারবারীরা আটক হয়নি। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, বেসামরিক প্রশাসন, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।
টেকনাফ-২ বিজিবি’র পরিচালক অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল এসএম আরিফুল ইসলাম ৬ জানুয়ারী জানান ‘৫ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টায় ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ সাবরাং বিওপির হাবিলদার মোঃ মাহবুবুল আলমের নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল সাবরাং ইউপিস্থ কাটাবুনিয়া (পুরাতন মেরিন ড্রাইভ) এলাকায় নিয়মিত টহলে গমন করে। টহলকালীন আনুমানিক ৭টায় সোর্সের মাধ্যমে জানতে পারেন মায়ানমার হতে সাগর পথে ইয়াবার একটি চালান আনয়ন করতঃ সমুদ্র উপকূল হতে বর্ণিত এলাকা দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে। উক্ত সংবাদ প্রাপ্তির পর টহল দল কাটাবুনিয়া এলাকায় পুরাতন মেরিন ড্রাইভ রাস্তার এক পার্শ্বে জংগলাকীর্ণ স্থানে ওঁৎ পেতে থাকে। পরবর্তীতে ৬ জানুয়ারি রাত পৌণে ২টায় টহল দল ৬-৭ জন লোককে ৪টি প্লাষ্টিকের বস্তা মাথায় সমুদ্র উপকূল হতে পুরাতন মেরিন ড্রাইভ রাস্তা দিয়ে আসতে দেখে চ্যালেঞ্জ করে। বিজিবি টহল দলের উপস্থিতি লক্ষ্য করা মাত্রই ইয়াবা পাচারকারীরা তাদের মাথায় থাকা বস্তাগুলো ফেলে অতিদ্রুত দৌঁড়ে পার্শ্ববর্তী গ্রামের ভেতর পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে টহল দল ইয়াবা পাচারকারী কর্তৃক ফেলে যাওয়া প্লাষ্টিকের বস্তাগুলো খুলে গণনা করে ২২ কোটি ২০ টাকা মূল্যমানের ৭ লক্ষ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, বেসামরিক প্রশাসন, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে’। ##

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।