টেকনাফে এক মেধাবী ছাত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগঃ থানায় মামলা

বিশেষ প্রতিবেদক ()
টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডস্থ বেইঙ্গা পাড়ায় দুবৃর্ত্তের হাতে ১ ছাত্রীসহ চার নারীর উপর বর্বোরোচিত হামলার ঘটনায় অবশেষে ওসির নির্দেশে ১৫ মার্চ (শুক্রবার) মামলাটি রেকর্ডভূক্ত হলো। মামলার বাদী টেকনাফ পৌরসভার চৌধুরী পাড়ার শাকের আহমদের মেয়ে এবং টেকনাফ এজাহার সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী খদিজা বেগম। বাদী মামলার বিবরণীতে উল্লেখ করেন, ৯ মার্চ সাবরাং বেইঙ্গা পাড়াস্থ তার আতœীয়ের বাড়ীতে বেড়াতে গেলে হামলার শিকার হয়। উল্লে থাকে যে, একই এলাকার হাসিনা আক্তার ও মোঃ ইসহাক সাবেক স্বামী ও স্ত্রী। ২ সন্তান ফয়সাল ও সাদিয়া আক্তার। পরকীয়ায় পড়ে মোঃ ইসহাক স্থানীয় পদ্মাবানুকে বিয়ে করে। এ নিয়ে তাদের সংসার ভেঙ্গে যায়। ঐদিন নিখোঁজ ছেলে ফয়সালের সন্ধান এবং পূর্ব শক্রতার আক্রোসের বসভর্তি হয়ে সাবেক স্বামী মোঃ ইসহাক গং এবং হাসিনা আক্তার গং এর মধ্যে মারামারি হলে বেড়াতে আসা খদিজা বেগম পরিস্থিতির শিকার হয়। এতে সে সহ ৪ নারী ওদের বেদডক মারামারিতে আক্রান্ত হয়। এ সময় দুবৃত্তরা ৩৬ হাজার টাকার মূল্যের ১২ আনা ওজনের স্বর্ণ ও একটি মোবাইল সেট নিয়ে নেয়। ৪ নারী হাসিনা আক্তার, বোন নাছিমা আক্তার ও মেয়ে সাদিয়া আক্তার গুরুতর আহত হয়। এ সংবাদ পেয়ে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে। পরে তাদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গুরুতর আহত হাসিনা আক্তারকে কর্তব্যরত ডাক্তার কক্সবাজার হাসপাতালে রেপার করে। বাকি ৩ নারীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে হাসিনা আক্তার এর প্রতিকার চেয়ে টেকনাফ মডেল থানায় অভিযোগ করলে ওরা ও পাল্টা অভিযোগ করে। প্রতিপক্ষের লোকজন বিত্তশালী বিধায় অভিযোগ নামাটি লাল ফিতার মধ্যে নিসম্প্রাণ অবস্থায় পড়ে থাকে। পরবর্তীতে আতœীয়ের বাড়ীতে বেড়াতে আসা নির্যাতনে শিকার টেকনাফ পৌর এলাকার চৌধুরী পাড়ার এবং এজাহার সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রী খদিজা বেগম মোঃ ইসহাককে প্রধান আসামী করে ৯ জনের বিরুদ্ধে একটি নারী নির্যাতন মামলা রুজু করে। যার মামলা নং ৩৯।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।