টেকনাফে অর্থের অভাবে চোখের চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত রোগিদের পাশে সুশীলন


নুর হাকিম আনোয়ার,টেকনাফ

নিজস্ব কর্মীদের দিয়ে কক্সবাজারের টেকনাফে গরিব-দুস্থ রোগীদের বাছাই করে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে সুশীলন নামে একটি বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা।

২৩ আগস্ট (সোমবার) বেলা ১২ টায় টেকনাফ আর্দশ বিদ্যালয়ের মাঠে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচী (ডব্লিউএফপি)’র সহযোগীতায় সুশীলন ইএফএসএন-৪ প্রকল্পের লক্ষিত জনগোষ্ঠী ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীর (হোষ্ট কমিউনিটির) দৃষ্টি শক্তি পরীক্ষার নিমিত্তে কক্সবাজার বাইতুশ শরফ চক্ষু হাসপাতালের সহযোগিতায় এ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ পারভেজ চৌধুরী।


কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন- দেশে প্রায় সাড়ে ৭ লাখ মানুষ দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। তাদের মধ্যে ৮০ শতাংশ রোগীই চোখের ছানিজনিত সমস্যার কারণে দেখতে পান না। দেশের সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান মিলে বছরে দেড় থেকে দুই লাখ রোগীর চিকিৎসা দিতে সক্ষমতা রাখে। কিন্তু বাকি রোগীরা চিকিৎসার বাইরে থাকে। চোখের এসব সমস্যা ভুগতে থাকা রোগীদের সংখ্যা কমিয়ে আনার লক্ষ্যে ডব্লিউএফপি’র সহযোগিতায় ও সুশীলনের মাধ্যমে সমগ্র উপজেলায় গরিব রোগীদের বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে।
তিনি আরো বলেন- যারা অর্থের অভাবে চোখের চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত, তাদেরকে এ কার্যক্রমের আওতায় আনা হবে। অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতির সাহায্য নিয়মিত ও দুস্থ রোগীদের মানসম্মত চিকিৎসাসেবা দেওয়ায় ধন্যবাদ জানান তিনি।

সুশীলনের উপ-পরিচালক সাচ্চিদানন্দ বিশ^াস জানান- প্রতিটি ইউনিয়নের ক্যাম্পিংয়ের মাধ্যমে দুস্থ রোগীদের খুঁজে বের করে বিনামূল্যে চোখের চিকিৎসা ও অন্যান্য সাপোর্ট দেওয়া হচ্ছে। এটি একটি সুশীলনের চলমান প্রক্রিয়া।

এ অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচী (ডব্লিউ এফপি)’র প্রতিনিধি একেএম মতিউর রহমান,সুশীলনের সহকারী পরিচালক ও ইএফএসএন-৪ প্রকল্পের প্রকল্প সমন্বয়কারী মোঃ নুরুল ইসলামসহ সুশীলনের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

উল্লেখ্য, এই কার্যক্রমের আওতায় বিনামূল্যে উখিয়া উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের ইএফএসএন-৪ প্রকল্পের লক্ষিত জনগোষ্ঠী ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীর (হোষ্ট কমিউনিটির) দৃষ্টি শক্তি পরীক্ষা শুরু হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ