টেকনাফে তরকারী ব্যবসায়ী থেকে কোটিপতি ইউসুফ

টেকনাফের তরকারী ব্যবসায়ী থেকে ইয়াবার বদৌলতে রাতারাতি কোটিপতি বনে যাওয়া সদরের লেংগুরবিলের বাসিন্দা মৌলভী জহিরের ছেলে মোহাম্মদ ইউসুফের বিরুদ্ধে ৫ সন্তানের জনকের স্ত্রীর সাথে দীর্ঘদিন পরকীয়া করার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। প্রতিবেদককে খোদ এই অভিযোগ করেছে ওই পরকীয়া মেয়ে ছালেহার স্বামী পৌর এলাকা পুরান পল্লান পাড়া ২ নং ওয়ার্ডের মরহুম আব্দু শুক্কুরের ছেলে গরীব ব্যক্তি আব্দুল আমিন। সে বলেন, সে দীর্ঘদিন বিদেশে থাকতেন। বিদেশে থাকাকালীন যে টাকা পাঠাতেন সব টাকা তার স্ত্রী ওই ইয়াবা ব্যবসায়ী ইউসুফকে খাওয়াতেন। এছাড়া তার স্ত্রীর সহযোগিতায় ও তার ৫ পুত্রের শরীরে কৌশলে ইয়াবা বহন করিয়ে ইউসুফ লেংগুরবিলে কানি জমির মালিক, লামার বাজার মসজিদের পার্শ্বে ভাড়াবাসা, স্টেশনে বিকাশের দোকানসহ কোটি কোটি টাকা ও নামে-বেনামে সম্পদের মালিক হলেও তার স্ত্রী এখনো ভাড়া ঘরে বসবাস করে আসছে। এছাড়া ইউসুফ কোটি কোটি টাকার মালিক হলেও তার কাজের বিনিময়ে তার লোভের ফাদে ফেলা ওই স্ত্রীকে দেই সবমিলিয়ে হাজারখানেক টাকা। যে টাকার লোভ ছাড়তে না পেরে তার স্ত্রী ছালেহা স্বামীকে দীর্ঘদিন ধরে ইউসুফের কথামতে কাল টাকার জোরে ভীষম নির্যাতন করে আসছে বলে সে জানায়। আরও জানায়, ২ বছর আগে ওই ট্যাবলেট ব্যবসায়ী ও তার স্ত্রীসহ মিলিয়ে তাকে মিথ্যা মামলা দিলে ওই মামলায় তিনি আটক হয়ে জেলে থাকার পর অনেক কস্টে পরশুদিন টেকনাফ এসে শুনতে পায় সে জেল থেকে বের হওয়ার খবর শুনে তার জন্য আবার নাকি মামলা করার জন্য মোটা টাকা দিয়ে স্ত্রীকে কক্সবাজারে পাঠিয়েছে ঐ ইউসুফ। এছাড়াও ইউসুফের বর্তমানে ২ টি মামলা রয়েছে যার মামলা নং Cr-71/16(T) এবং Gr 347/79-17 । এ ব্যাপারে ইউসুফের (০১৮৬৭-৫৪৮৫৬১) এ মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলে সংযোগ দেওয়া সম্ভব হয়নি। জ্বালা আর সহ্য করতে না পেরে ৯ জুলাই আব্দুল আমিন অবশেষে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউএনও বরাবরে মামলা হামলা থেকে বাচতে, স্ত্রী সন্তানদের ফেরৎ পেতে ও উক্ত ব্যবসায়ীকে আইনের আওতায় আনতে সুবিচার পেতে অভিযোগ তুলে দিয়েছে। অবশেষে সাংবাদিকদের কাছে তার একটাই দাবি সে আগের মতো তার স্ত্রী ও সন্তানকে ফেরত পেতে চায়। সাথে তার স্ত্রীর সাথে পরকীয়া করা ঐ ইয়াবা ব্যবসায়ী ইউসুফকে আইনের আওতায় আনতে উখিয়া-টেকনাফের মাননীয় সাংসদ শাহীন আক্তার বদি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল আলম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসান, মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দাশসহ টেকনাফে কর্মরত সকল সাংবাদিকদের জরুরী সহযোগিতা কামনা করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।