টেকনাফে পাষণ্ড চাচার কান্ড!

টেকনাফে পাষণ্ড চাচার কান্ড!
বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের সদর ইউনিয়নে সম্পত্তির বিরোধকে কেন্দ্র করে হামলায় কলেজ ছাত্রীসহ একই পরিবারের ৪ জন গুরতর আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হামলায় আহতরা দাবী করছেন, তাদের চাচা আমির আহমদ ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের দিয়ে তাদের উপর হামলা করেছেন এবং প্রাণ নাশের চেষ্টা করেছেন।
বৃহস্পতিবার ভোরে ঘটনাটি ঘটেছে টেকনাফের সদর ইউনিয়নের মিঠাপানির ছড়া ১নং ওয়ার্ড এলাকায়। এই ঘটনায় আহত হয়েছেন, মৌলভী আবু ছিদ্দিক (৩৬), মিনারা বেগম (৪৭), ফাতেমা খাতুন ও কলেজ ছাত্রী ফারজানা আক্তার। ইতোমধ্যে আহতরা কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়ে ৫ম তলায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।
গুরতর আহত আবু ছিদ্দিক বলেন, জমির বিরোধ ছিলো আগে থেকে কিন্তু সকাল বেলা কোন কিছু বুঝে উঠার আগে আমির আহমদ ও তার ছেলে ইমরান এসে আমাদের উপর হামলা চালায়।
আবু ছিদ্দিক জানান, সহজ সরল শশুরের জমিগুলো তিনি পরিচালানা করছেন তাই চাচা শশুর অনেকদিন ধরে ক্ষুদ্ধ। তার শশুরের পাওয়া জমিগুলোও চাচা শশুর আমির আহমদ দখল করে আছেন। এই বিষয় নিয়ে বিরোধ গড়িয়েছিল স্থানীয় ইউপি মদস্য এবং চেয়ারম্যানের কাছে পর্যন্ত। তারা কোন বিচার এবং আইন তোয়াক্কা করেন না।
হামলায় আহত আবু ছিদ্দিকের স্ত্রী ফাতেমা খাতুন বলেন, সম্পর্কে আমার চাচা হলেও সবসময় সন্ত্রাসীর মতো আচরণ করেন। দীর্ঘ বছর ধরে আমাদের উপর অত্যাচার করে আসছেন। কোন প্রতিবাদ করতে পারি না। প্রতিবাদ করলেই সন্ত্রাসীদের দিয়ে আমাদের উপর নির্যাতন চালায়। বৃহস্পতিবার ভোরেও যে ঘটনাটি ঘটেছে সেইরকম। ভোর বেলা কোন কথা ছাড়া আমাদের পরিবারের উপর হামলা করেছেন আমির আহমদ ও তার লোকজন।
এদিকে হামলায় আহত কলেজ ছাত্রী ফারজানা আক্তার দাবী করছেন, তাকে প্রতিনিয়ত কলেজে যেতে উত্যাক্ত করতো বকাটে তার চাচাতো ভাই ইমরান। বিষয়টি নিয়ে তার পরিবারকে বিচার দিলেও কখনো করেনি।
কলেজ ছাত্রী ফারজানা জানান, তারা ৫ বোনের এক ভাই মাত্র। তাই পরিবারটি অসহায় হওয়াতে বাবার পৈত্রিক সম্পত্তি চাচা আমির আহমদ নানান ভাবে হয়রানি করে নিয়ে ফেলতে চাচ্ছেন। গতবছরও স্থানীয় ইউপি সদস্য ওমর হাকিম বিষয়টি ঠিক করে দিয়েছিলেন। কিন্তু আবারো বেপরোয়া আচরণ শুরু করেছেন আমির আহমদের পরিবার। তারা কোন বিচার এবং আইন তোয়াক্কা করছেন না। এদিকে যারা হামলা করেছেন তাদের প্রত্যোকজনকে চিনতে পেরেছেন হামলায় আহতরা। হামলাকারীরা হলেন, মৃত মকবুল আহমদের ছেলে আমির আহমদ (৪৫) তার ছেলে ইমরান (২২), রহমত উল্লাহ, সুলতান আহমদ, ছৈয়দুর রহমান, নুর নাহার ও তানজিনা আক্তার।
সদর হাসপতালে চিকিৎসা নেয়া আহতরা ঘটনাটির সুষ্টু বিচার চেয়েছেন সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে।

cb24tv

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ