টেকনাফ ইউএনওর হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ

সাইফুদ্দীন মোহাম্মদ মামুন, টেকনাফ।

টেকনাফ ইউএনও মোঃ রবিউল হাসানের নির্দেশে এসিল্যান্ড প্রণয় চাকমার নের্ত্বৃত্বে ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিসার মোঃ আলমগীর কবিরের সহযোগীতায় বাল্যবিবাহ বন্ধ হয়েছে বলে জানা গেছে। ২২ এপ্রিল দুপুর ১২টায় ঘটনাটি ঘটে। জানা যায়, গোপনে সদরের নাজির পাড়ায় হোসন আহমদের মেয়ে আজিদা খাতুন(১৪) ও হাসু মিয়ার ছেলে(৩০) ইব্রাহিমের সাথে বাল্যবিবাহের আয়োজন চলছিল। সাথে সাথে উপজেলা প্রশাসন খবর পেয়ে স্পটে গেলে ধুমধাম আয়োজন চলাকালীন ছেলে পালিয়ে গেলেও মেয়ের বাবাকে পাওয়ায় তাকে ২০ দিনের কারাদন্ড দেওয়া হয় এবং সতর্ক করে দেওয়া হয়। এ সময় মডেল থানার এসআই সাইদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। নাজির পাড়ার স্থানীয় মেম্বার এনামুল হক এনাম মেম্বার বলেন, আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানিনা। তবে খবর নিয়ে জানতে পারলাম প্রশাসন এ বিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে। তাই প্রশাসনকে আমি আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। স্থানীয়দের মতে বাল্যবিবাহ করা ঔ ব্যক্তি এর আগে এই মেয়ের বড়বোনকে বিয়ে করেছিল। পরে সে মারা যাওয়ায় এখন তার ছোট বোনকে গোপনে বিয়ে করতেছে। এ ব্যাপারে ইউএনও মোঃ রবিউল হাসান বলেন, সীমান্তের শহর টেকনাফকে বাল্যবিবাহ মুক্ত করার অঙ্গীকার নিয়ে কাজ করার ধারাবাহিকতায় বার্তা পাওয়ার সাথে সাথে স্পটে গিয়ে বাল্যবিবাহ বন্ধ করে মেয়ের বাবাকে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।