টেকনাফ পৌরসভার প্রধান সড়কের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কবে ?

বিশেষ প্রতিনিধি::
টেকনাফ পৌরসভার প্রধান সড়কের উভয় পার্শ্বে অবৈধ স্থাপনা কবে উচ্ছেদ হবে?। এমন প্রশ্ন পৌরবাসীর। পৌর এলাকার কুলালপাড়া শাহপরীরদ্বীপ জিরোপয়েন্ট টেকনাফ কক্সবাজার সড়কের উত্তর নাইট্যং পাড়া পর্যন্ত ২ কিলোমিটার সড়কের উভয় পার্শ্বে অবৈধ স্থাপনাও সামাজিক প্রতিষ্ঠান বেঙের ছাতার ন্যায় গড়ে উঠেছে। সেই সাথে গড়ে উঠেছে ভাসমান বিভিন্ন দোকান পাটও ইট, বালিও বাঁশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যার কারনে প্রধান সড়কে যানচলাচল নিয়মিত ঝুঁকিতে রয়েছে। এ নিয়ে যাত্রীও পথচারীরা আতংকের মধ্যে থাকে। এছাড়া সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয় যে, টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল প্রবেশ পথে ময়লা আবর্জনা ভরপুর এবং হাসপাতাল ও পৌর শহরের পানিচলাচলের ড্রেইনটি বেদখলহয়ে যাওয়ায় জনদূর্ভোগ এখন চরমে। হাসপাতালের সামনে প্রবেশদার পানিচলাচলের একমাত্র ড্রেইনটির উপর স্থানীয় ভুমিদস্যু এবং মাদককারবারীরা জবর দখল পূর্বক অবৈধ স্থাপনা নির্মান করে বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠান হোটেল খুলে হেটেলের আবর্জনা ও মলমুত্র ত্যাগ করে স্থানীয় পরিবেশকে ঘোলাটে রাখে। ড্রেইনটি পানিচলাচলেরর প্রতিবন্ধকতা থাকায় এখানে মশামাছির প্রজনন কেন্দ্র পরিনত হয়ে পড়ে। হাসপাতাল মূখী রোগিরা দুর্গন্ধে নাকে রুমাল দিয়ে চিকিৎসা সেবা নিতে বাধ্য হচ্ছে। আশপাশের বৈধ ব্যবসায়ীর প্রতিষ্ঠান সমূহ ব্রজি সংলগ্ন হোটেল মালিকের এহেন আচরনে ক্ষুদ্ধ। এছাড়াও হাসপাতাল প্রবেশ পথে ময়লা আবর্জনা রাখার পৌর কর্তৃপক্ষের নির্মিত ডাস্টবিনটি দখলে নেই। ফলে যত্রতত্র স্থানে ময়লা আবর্জনা রাখায় এখানকার স্বাস্থ্যকর পরিবেশ দিনাদিন ব্যাহত হচ্চে।স্থানীয় ব্যবসায়ী পৌর প্রশাসকসহ ও স্থানীয় প্রসাশসনে এর প্রতিকার দাবী করেছে। এব্যাপারে টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর কর্মকর্তা ডাঃ সুমন বড়–য়ার কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে এর উদ্বেগ প্রকাশ করে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।