মিয়ানমার থেকে এলো ফের ২৭ টন পিয়াজ


কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দরে মিয়ানমার থেকে আমদানি করা ২৭ মেট্রিক টন (১৮০০ বস্তা) পিয়াজ এসেছে। গতকাল দু’টি ট্রলারে এই পিয়াজ টেকনাফ স্থলবন্দর ঘাটে এসে পৌঁছায়। কাগজপত্র জমা দিয়ে আমদানি করা এই পিয়াজ গুলো খালাস শেষে ট্রাকে করে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো সম্ভব বলে বন্দর সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে টেকনাফ স্থলবন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন বলেন, মিয়ানমার থেকে পিয়াজ ভর্তি ট্রলার এসেছে।
২৭ মেট্রিক টন পিয়াজ টেকনাফ স্থলবন্দরে এসে পৌঁছায়। এ সব পিয়াজ যত দ্রুত সম্ভব খালাস করে বাজারে পৌঁছানো হবে। এর আগে সর্বশেষ ৩০ মেট্রিক টন পিয়াজ এসেছিল মিয়ানমার থেকে।
টেকনাফ শুল্ক বিভাগ জানায়, মিয়ানমার থেকে এ বন্দর দিয়ে গত নভেম্বরে ২১ হাজার ৫৬০ মেট্রিক টন পিয়াজ আমদানি হয়েছে। এছাড়া অক্টোবরে ২০ হাজার ৮৪৩ মেট্রিক টন, সেপ্টেম্বরে ৩ হাজার ৫৭৩ দশমিক ১৪১ মেট্রিক টন এবং আগস্টে ৮৪ মেট্রিক টন, চলতি মাসে ৩০ মেট্রিক টন পিয়াজ আমদানি করা হয়।
টেকনাফ স্থলবন্দরের মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, মিয়ানমার থেকে রোববার বিকাল পর্যন্ত দু’টি ট্রলারে করে ২৭ মেট্রিক টন (১৮০০ বস্তা) পিয়াজ এসেছে। কাগজপত্র বুঝিয়ে দ্রুত পিয়াজ গুলো খালাস করা হচ্ছে।’
সংকট মোকাবিলায় ব্যবসায়ীদের পিয়াজের আমদানি বাড়াতে উৎসাহিত করা হচ্ছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।
তিনি জানান, এসব পিয়াজ আমদানি করেছেন বন্দর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। আমদানি করা পিয়াজের বস্তাগুলো ট্রলার থেকে দ্রুত খালাস করে ট্রাক করে বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে পাঠানো হবে।
উল্লেখ্য, মিয়ানমারে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ায় গত আড়াই মাস ধরে টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে পণ্য যাওয়া-আসা বন্ধ ছিল। সর্বশেষ চলতি মাসে ৩০ মেট্রিক টন পিয়াজ এসেছিল।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ