সকালের কক্সবাজার পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের একাংশের প্রতিবাদ ও বিবৃতি


গতকাল (১০ ডিসেম্বর) দৈনিক সকালের কক্সবাজার পত্রিকার প্রথম পৃষ্ঠায় “ইয়াবা’র ৬০ গডফাদার” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের একাংশ আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। ওই সংবাদে আমার নাম দেখে বিস্মিত ও হতবাক হয়েছি। যে সর্বনাশা ইয়াবা, মাদক ও চোরাচালানের বিরুদ্ধে আমি ও আমার পরিবার সংগ্রাম করছি, সেখানে আমাকে ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে উল্লেখ করা একটি সুগভীর চক্রান্ত ছাড়া কিছু নয়।
উল্লেখিত সংবাদটি যেহেতু উদ্দেশ্য প্রণোদিত, ভূয়া ও কাল্পনিক, তাই আমি উক্ত প্রকাশিত সংবাদের একাংশের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
আমি দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে চাই, আমার মরহুম পিতা মোহাম্মদ শফি মেম্বার আওয়ামী রাজনীতির পাশাপাশি মাদক ও অপরাধ বিরোধী কাজে সোচ্ছার ছিলেন এবং আমার বড় ভাই টেকনাফ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুল বশর ও আমি টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, টেকনাফ সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সারাজীবন ইয়াবা, মাদক ও চোরাচালানের বিরুদ্ধে সোচ্ছার ভূমিকা পালন করে আসছি। এই ভূমিকার কারণে মাদক ও ইয়াবা পাচারকারীরা আমাদের শত্রুতে পরিণত হয়েছে, যা সকলে জানে। ইতিপূর্বে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ যে সমস্ত তালিকা প্রকাশিত হয়েছে, সেখানে কোথাও আমিসহ আমার পরিবারের কারো নাম নেই। আমি টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি থেকে যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে আজ পর্যন্ত রাজনীতি ও সমাজের উন্নয়নমূলক কাজ করতে গিয়ে অনেকে আমার প্রতিদ্বন্ধী ও শক্রু হতে পারে। তাই রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা সাংবাদিক ভাইদেরকে আমার বিরুদ্ধে ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করাতে পারে। আমার দৃঢ় মনোবল নষ্ট করার জন্য সংবাদের একাংশে ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে আমার নাম জুড়ে দিতে পারে বলেও আমার ধারণা।
তাই আমি এই মিথ্যা সংবাদ নিয়ে আইন শৃংখলা বাহিনী, রাজনৈতিক নেতা-কর্মী, আমার এলাকার জনগণসহ সর্বমহলকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। এরপরেও যদি কারো কাছে বিন্দুমাত্র বিভ্রান্তি থেকে থাকে, তাহলে আইন শৃংখলা বাহিনী ও সংশ্লিষ্ট সকলকে আরও তদন্ত করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। তদন্ত কাজে যে কোন ধরণের সহযোগিতা করতে আমি প্রস্তুত।
নিবেদক
নুরুল আলম
সভাপতি
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ
টেকনাফ উপজেলা শাখা।

সাবেক চেয়ারম্যান
টেকনাফ সদর ইউনিয়ন পরিষদ।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।