সাবরাংয়ে বিয়ের প্রলোভনে প্রেমিকাকে এক মাসের মাথায় ফেলে পালিয়ে গেল প্রেমিক

ফরহাদ আমিন,টেকনাফ:::teknaf-premik-pic-22-10-16-235x225
টেকনাফের সাবরায়ে বিয়ের প্রলোভনে এক প্রেমিকাকে তুলে নিয়ে এক মাসের মাথায় ফেলে পালিয়ে গেল প্রেমিক। পরে পুলিশ প্রেমিকাকে উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে। এ ঘটনাটি টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের কোয়াইংছড়ি পাড়া এলাকায় ঘটেছে।
জানাযায়, গত ১৯ সেপ্টেম্বর রাতে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং কাটাবনিয়া এলাকার সৈয়দ হোসনের ছেলে আলমগীর হোসেন(২৫) বিয়ের প্রলোভন দিয়ে প্রেমিকা সাবরাং ইউনিয়নের কোয়াইংছড়ি পাড়া এলাকার বশির আহাম্মদের মেয়ে রেহেনা আক্তারকে বাড়ী থেকে তুলে নিয়ে যায়। তবে প্রেমিক আলমগীর প্রেমিকা রেহেনাকে বিয়ের নানা প্রলোভনে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যায়।
এদিকে প্রেমিকা রেহেনার ভাই আমান উল্লাহ বোনকে বিভিন্ন স্থানে খুঁজে না পেয়ে গত ২১ সেপ্টেম্বর টেকনাফ মডেল থানায় একটি নিখোঁজ ডাইরী লিপিবদ্ধ করে। যার নং ৮৫৩। এর পরও বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করতে করতে দীর্ঘদিন পর গত শনিবার টেকনাফ পৌরসভার ইসলামাবাদ এলাকায় বোন রেহেনার অবস্থান জানতে পেরে থানা পুলিশকে সংবাদ দেয়। ওইদিন দুপুরে টেকনাফ মডেল থানার এসআই মুফিজুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ওই এলাকা থেকে রেহেনাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে রেহেনাকে যে কোন সময় হাজির করার অঙ্গিকারে পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেয়।
এদিকে প্রেমিকা রেহেনার সাথে প্রতিবেদকের কথা হলে জানায়, সাবরাং কাটাবনিয়ার আলমগীর আমাকে ১০ লাখ টাকা কাবিন ও ১০ ভরি স্বর্ণ অলংকারের আশ্বাস দিয়ে বিয়ের প্রলোভনে গত ১৯ সেপ্টম্বর রাতে বাড়ী থেকে নিয়ে যায়। ওইদিন রাতে টেকনাফের হোটেল গ্রীন র্গাডেনে, পরের দিন এক আত্মীয়ের বাসায়, এর পর টেকনাফের ইসলামাবাদ ইউনুচের ভাড়া বাসায় ৮ দিন রাখে। পরে কক্সবাজার সমিতি পাড়ায় ভাই শমসুর বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে ২২ দিন রাখার পর টেকনাফ চলে আসি। টেকনাফে একদিন থাকার পর পরের দিন বাজার করতে বের হয়ে আলমগীর আর ফিরেনি। পরে জানতে পারলাম তার মা ও ভাই এসে কক্সবাজার নিয়ে গেছে। সে বিশ্বাস ঘাতক প্রেমিক আলমগীরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।
তবে ভাই আমান উল্লাহ জানান, আমার বোনকে বিয়ের প্রলোভনে উঠিয়ে নিয়ে যায়। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজির এক পর্যয়ে ৩৩ দিনের মাথায় বোনের সন্ধান পাওয়া যায়। পরে পুলিশের মাধ্যমে তাকে উদ্ধার করা হয়। তবে আমার বোনের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলাকারী প্রতারক আলমগীরের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচেছ বলে জানায়।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।