হোয়াইক্যং এলাকার মফিদ পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত


টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মফিদ আলম (৩৮) নামে এক মাদক কারবারি নিহত হয়েছেন।

নিহত মাদক কারবারি হল, টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নয়াপাড়া এলাকার মৃত নজির আহম্মদের ছেলে মফিদ আলম(৩৮)।

শনিবার রাত সাড়ে ১২ টার দিকে টেকনাফ হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নয়াপাড়া বালিকা মাদ্রাসার পিছনে নাফ নদীর পাশে এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, গতকাল রাত সাড়ে আটটার সময় এএসআই ওহিদ সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্স সহ হোয়াইক্যং নয়াপাড়া বাজার এলাকায় মাদক উদ্ধার অভিযান ডিউটি করা কালীন ইয়াবা কারবারি মফিদ আলমকে গ্রেফতার করে।

পরে তার স্বীকারোক্তীতে ইয়াবার একটি বড় চালান নয়াপাড়া বালিকা মাদ্রাসার পিছনে নাফ নদীর পাশে মজুদ রয়েছে। তাৎক্ষণিক আমার নেতৃত্বে অতিরিক্ত অফিসার ফোর্সসহ তাহার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ইয়াবা উদ্ধারের গেলে তার সহযোগী অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও ইয়াবা কারবারিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। আমার নির্দেশে নিজেদের জীবন ও সরকারী সম্পত্তির আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। বেশ কিছুক্ষণ গুলিবিনিময়ের পর ইয়াবা কারবারিরা পালিয়ে যায়।

পরে ঘটনাস্থল থেকে এসব অস্ত্র, গুলি ও-ইয়াবাসহ গুলিবিদ্ধ আহত অবস্থায় মফিদকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাসপাতালে পাঠানো হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাক্তার শংকর চন্দ্র দেবনাথ তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার প্রেরন করা হয়। সেখানে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। নিহত মাদক কারবারির লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

তিনি আরোও বলেন, এ সময় ঘটনাস্থল থেকে দুইটি দেশীয় তৈরি এলজি বন্দুক, ১০ রাউন্ড কাতুজ ও ৫ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। এবং তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়। তারা হলেন, এএসআই অহিদ, কনেস্টবল রুবেল মিয়া, মনির হোসেন। এ ব্যাপারে আইনী প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।