৩০ তম মানসিক রোগী পরিবারের নিকট হস্তান্তর করলো মারোত 

৩০ তম মানসিক রোগী পরিবারের নিকট হস্তান্তর করলো সেচ্ছাসেবী সংগঠন মারোত
অবশেষে আজ সেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার, (আক্তার-পাগল)কে  মানসিক রোগীদের তহবিল ( মারোত) টেকনাফ এর পক্ষ থেকে   তার মা এবং পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ সংগঠন এর উদ্যোগে এ পর্যন্ত ত্রিশ জন  ভাসমান মানসিক রোগীদের পরিবার এর নিকট হস্তান্তর করা হয়।
নাম – আক্তার মিয়া, পিতা – মোহাম্মদ গুনু মিয়া, মাতা – মোছাম্মত ফুলজাহান, বয়স -৩৫ বছর,  কুড়িঘড় পশ্চিম পাড়া, নবীনগর উপজেলা,  ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা, দুই বছর আগে বাসা থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেনি, এদিকে গত বছরের ২৫ শে মার্চ থেকে লকডাউন চলাকালীন মারোত এর সদস্যরা নিয়মিত খাবার বিতরণ সম্পন্ন করে তা বিভিন্ন সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত হয়, বিভিন্ন শুভাকাঙ্ক্ষী তা লাইক কমেন্ট, শেয়ার করে প্রচারণা চালিয়ে আসছে, এরই ধারাবাহিকতায়  ইতিমধ্যে  মারোত এর শুভানুধ্যায়ী নোয়াপাড়া গ্রামের আবদুর রহিম এর সাথে যোগাযোগ হয় আক্তার মিয়া র পরিবারের সাথে,  আবদুর রহিম মারোত কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ঝুন্টু বড়ুয়া ও আইটি সম্পাদক মোহাম্মদ হোসাইন আমিরী র সাথে যোগাযোগ করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি র সহযোগিতা নেন ,   পরে মারোত নের্তৃবৃন্দের সবাই  নিয়মিত যোগাযোগ এর মাধ্যমে তার পরিবার আজ ৯ ই জুন স্থানীয় নোয়াপাড়া বাজারে আসলে মারোত নের্তৃবৃন্দের উপস্তিতিতে মারোত কেন্দ্রীয় সভাপতি আবু সুফিয়ান এর সভাপতিত্বে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে হস্তান্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।  এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মারোত কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান উপদেষ্টা অধ্যাপক সন্তোষ কুমার শীল । উপস্থিত ছিলেন  মারোত কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ঝুন্টু বড়ুয়া, আইসিটি ও দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ হোসাইন আমীরী, আবদুর রহিম,    অনিমেষ বড়ুয়া, আনোয়ার শাহ প্রমুখ।
অন্যান্যের মধ্যে  স্থানীয় নোয়াপাড়া বাজারে র জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।
পরে টেকনাফ হাকিম আলী মার্কেট মারোত অফিসে  আক্তার এর পরিবার  মারোত উপদেষ্টা সাইফুল হাকিম ও জয়েন্ট সেক্রেটারি মোবারক হোসেন ভুইয়ার সাথে  সৌজন্য সাক্ষাৎ করে হস্তান্তর পত্র গ্রহণ  করে মারোত নের্তৃবৃন্দ এর প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করেন ।
Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ