প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখা


৩ ফেব্রুয়ারী দৈনিক সমূদ্র কন্ঠ এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেইসবুকে) প্রকাশিত “টেকনাফের বেপরোয়া দুই সহোদয়,অতিষ্ঠ নিরীহ মানুষ“ শীর্ষক সংবাদ খানা আমার দৃষ্ঠি গোছর হয়েছে। সংবাদে তুচ্ছ ঘটনাকে মাদক ঘটনা সাজিযে তিলকে তালবানিয়া প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করা হয়েছে। যাহা মাদকের ঘটনার সাতে দুরতম সম্পর্ক নেই। আমার দুই ছেলে সৈয়দ আলম ও জসিম পুরাতন পল্লান পাড়ার মুদির দোকানের ব্যবসায়ী এবং এলাকার অন্যায়ের প্রতিবাদকারী হয়। সমপ্রতি দোকানের মালামাল ক্রয়কালে প্রতিপক্ষ পূর্ব শক্রতার আক্রোসে বশবর্তী হয়ে নিত্যপন্য মালামাল মূল্য নির্ধারণ নিয়ে কথা কাটাকাটি এবং এক পর্যায়ে হাতাহাতি হয়। শেষ পর্যায়ে একে পুজি করে প্রতিপক্ষ চলমান মাদক বিরুধী অভিযানকে সামনে রেখে আমার ছেলেদেরকে মাদকের ফাঁদে জড়ানোর উদ্দেশ্যে আইন শৃংখলা বাহিনীর কাছে ভুল তথ্য সরবারহ করে ওদের হীন স্বার্থ হাসিল করতে চায়। যাহা সত্যের লেশ মাত্র নেই। মাদক পরিস্থিতিতে আমাদেরকে বেকায়দায় ফেলার উদ্দেশ্যে প্রতিপক্ষ অবশেষে মিথ্যা সংবাদে আশ্রয় নিয়েছে। এ প্রসঙ্গে আমার বক্তব্য, প্রতিপক্ষ প্রকৃত সংঘবদ্দ মাদককারবারি এবং অপকর্মের বিরুদ্দে অতিতে অবস্থান নেওয়ায তারই বহি প্রকাশ মাত্র। সামান্য তুচ্ছ ঘটনাকে পূজি করে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদপত্রের কাঁদে হাতিয়ার দিয়ে পাখি শিকার করতে চায়। আমার ছেলেরা মাদকের সাথে সম্পৃত্ত থাকার কোন প্রশ্নই উঠেনা এবং মাদক তালিকাই তাদের নাম ও নেই। এমতাবস্থাই প্রতিপক্ষ আমাদের বিরুদ্দে মাদকের সংশ্লিষ্ঠতার অপপ্রাচার চালিয়ে ঘোড়াও পানিতে মাছ শিকার করছে। প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য মূলক। আমি উক্ত প্রকাশিত সংবাদের তীভ্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি। ভবিষ্যতে এ ধরণের এক পেশি মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হলে আমি আইনগত ব্যবস্থা নিতে বাধ্য থাকিব।

প্রতিবাদকারী
মোঃ আমিন
পুরাতন পল্লান পাড়া
টেকনাফ পৌরসভা

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।