১৬৩ কর্মীকে অগ্রিম বেতন দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন টেকনাফের জাভেদ

Chittagonj-Javed-Risingbd20200324163844.jpg

অনলাইন ডেস্ক |

করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের কারণে ব‌্যবসা-বাণিজ‌্যসহ স্বাভাবিক কাজ-কর্মে বিঘ্ন ঘটছে। এতে খেটে খাওয়া মানুষের রোজগার কমে গেছে। অন‌্যদিকে, দ্রব‌্যমূল‌্য বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন নিম্ন ও মধ‌্যম আয়ের মানুষ। এ পরিস্থিতিতে নিজ প্রতিষ্ঠানের ১৬৩ জন কর্মীকে অগ্রিম বেতন দিয়ে অনন‌্য নজির স্থাপন করেছেন চট্টগ্রামের এক ব‌্যবসায়ী।

মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) চট্টগ্রামের নাসিরাবাদ ও চাক্তাই বাণিজ্যিক এলাকায় ইউনিলিভারের পণ‌্য বিপণনকারী জাবেদ আলী তার প্রতিষ্ঠানের সব কর্মীকে অগ্রিম বেতন দেন।

জাবেদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘করোনা নিয়ে দেশে সঙ্কটময় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। মানুষের আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। আমার প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন বিভাগে ১৬৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী দায়িত্ব পালন করেন। সাধারণত প্রতি মাসের ৫ তারিখের মধ্যেই সবার বেতন পরিশোধ করা হয়। সরকার ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করেছে। এ অবস্থা বিবেচনায় আমার প্রতিষ্ঠানের সব কর্মীকে আগাম বেতন পরিশোধ করেছি।’

জাবেদ আলী বলেন, ‘মাসের শেষদিকে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষের নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা হয়। দেশের এই সঙ্কটের সময় পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ। তাই আমার প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের দায়-দায়িত্ব আমি নিজের কাঁধে তুলে নিলাম। সব নিয়োগকর্তার মধ্যেই এমন দায়বদ্ধতা থাকা দরকার। এই কর্মীরাই আমার সহযোদ্ধা।’

প্রশংসনীয় এ উদ্যোগের ফলে প্রশংসায় ভাসছেন জাবেদ।

প্রসঙ্গত জাভেদ উখিয়া-টেকনাফের সাবেক সাংসদ মরহুম হাজী আব্দুল গণির ছেলে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।