সেন্টমাটিন ও কক্সবাজার অঞ্চলে মারা গেছে ১১টি ডলফিন

করোনা ভাইরাসের কারণে মানুষশুন্য কক্সবাজার সৈকত এলাকায় ডলফিনের বিচরণ বাড়লেও গত কয়েকদিনে মারা গেছে তিনটি ডলফিন। গেলো দুই মাসে সেন্টমাটিন ও কক্সবাজার অঞ্চলে মারা গেছে ১১টি ডলফিন। কারেন্ট জাল ব্যবহার, কম গভীর পানিতে মাছ ধরতে জাল পেতে রাখাসহ নানা কারণে ডলফিন মারা যাচ্ছে বলে মনে করছেন গবেষকরা। বঙ্গোপসাগরের পরিবেশ টিকিয়ে রাখতে এখনই ডলফিন সংরক্ষণের উদ্যোগ নিতে বলছেন তারা।

গেলো মাসে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে পর্যটক নিষিদ্ধ হওয়ার পর সাগর তীরের কাছাকাছি ডলফিন দেখা যায়। গত তিন দশকেও যা দেখেনি কেউ। এই ডলফিনের একটি ছিল গোলাপী রঙের। যা বিশ্বে এখন বিপন্ন প্রায়।

ডলফিনদের ফিরে আসার সপ্তাহ না পেরুতেই আসতে থাকে হতাশার খবর। গেল তিনদিনে কক্সবাজার সাগর এলাকায় মিলেছে তিনটি ডলফিনের মরদেহ। এরমধ্যে শুক্র, শনি ও রোববার তিনদিনে তিনটি ডলফিন মারা গেছে বলে জানান কক্সবাজারের পরিবেশ সংরক্ষণ কর্মীরা।

সাগর সৈকতে ডলফিন মারা যাওয়ার ঘটনা তদন্ত করছে কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগ।

এদিকে, গবেষকরা জানালেন, সাগরের কম গভীর জলে মাছ ধরার সময় জালে আটকে, এবং ট্রলার ও জাহাজের পাখায় আঘাত পেয়ে মারা যাচ্ছে ডলফিন। এসব কারণে গত দুই মাসে ১১টি ডলফিন মারা গেছে।

বঙ্গোপসাগরে বিচরণ করা তিমি, ডলফিনসহ সাগরের জলজ প্রাণী সংরক্ষণে বিশেষ গুরুত্ব দিতে পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ