টেকনাফে চার রোহিঙ্গা ডাকাত বন্দুকযুদ্ধে নিহত


টেকনাফ প্রতিনিধি
কক্সবাজারের টেকনাফ হোয়াইক্যং গহীন পাহাড়ে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে চার রোহিঙ্গা ডাকাত নিহত হয়েছে। এরা সবাই মিয়ানমারের শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ডাকাত সর্দার বাংলাদেশে পালিয়ে আসা আবদুল হাকিমের দুই ভাই ও তাদের সহযোগী। ঘটনার সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আবদুল হাকিম পালিয়ে যায়।
নিহতরা হলেন- মিয়ানমারের বড়ছড়ার মংডু থানার জানে আলমের ছেলে আবদুল হাকিম ডাকাতের ভাই বশির আহমদ, আবদুল হামিদ, তাদের ভগ্নিপতি মোঃ রফিক ও রক্কা।
২৬ জুন (শুক্রবার) দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার হোয়াইক্যং-শামলাপুর মনতলী পাহাড়ের পাদদেশে এ ঘটনা ঘটে।
কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান- গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে, আবদুল হাকিমের নেতৃত্বে একটি ডাকাতদল ডাকাতির প্রস্তুতি ও ইয়াবার হাতবদল করেছিল। এমন সংবাদে পুলিশ হোয়াইক্যং পাহাড়ি ঢালায় অবস্থান জেলা পুলিশের বিশেষ দল এই আস্তানা ঘেরাও করে ফেলে। এসময় ডাকাতদলের সদস্যরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়লে, পুলিশ আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুঁড়ে। দু’পক্ষের গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থল তল্লাশী করে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও অস্ত্রাদিসহ গুলিবিদ্ধ আবদুল হাকিমের ভাই বশির আহমদ,আবদুল হামিদ, তাদের ভগ্নিপতি রফিক ও রইঙ্গা নামে ৪জন রোহিঙ্গাকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এই স্বশস্ত্র রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রুপের সদস্যরা মারা যায়। ঘটনাস্থল থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।
তিনি আরো জানান- নিহতের মৃতদেহ কক্সবাজার মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ