টেকনাফ সদরে রাস্তা সংস্কারের দাবী নিয়ে এগিয়ে এসেছেন আবুল হোসেন


নিজস্ব প্রতিবেদক ()যে যাই লংকায় সেই হয় রাবন, জন প্রতিনিধি আসে জনপ্রতিনিধি যায়, কেউ কথা রাখে না। ২ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষের ফসলের মাঠ ও চলাচলের একমাত্র গ্রামীণ সড়কটির বেহাল দশার কারণে কষ্টের যেন অন্ত নেই ঐ এলাকার মানুষের।

টেকনাফ সদর ইউনিয়নের শীলবনিয়াপাড়া মেইনরোড থেকে ডেইলপাড়া মন্দির পর্যন্ত গ্রামের মানুষের যাতায়াতের একমাত্র গ্রামীণ সড়কটি দীর্ঘদিন ধরেই সংস্কার বা ড্রানেজ ব্যবস্থা না করায় ২ গ্রামের ২ শতাধিক পরিবার চলাচল করতে পারছেনা। পানি জমে থেকে তৈরী হয়েছে গর্ত, এসব গর্ত না চেনার কারণে পানিতে হাবুডুবু খেতে হয়। এছাড়াও জরুরী প্রয়োজনে কারো অসুখ হলে রিক্সা, বা টমটম নিয়ে আসতে পারে না। এসব মানুষের কষ্ট দেখে কেউ এগিয়ে না আসলেও নিজের অর্থায়নে ট্রাক নিয়ে মাটি এনে বস্তা ভরে চলাচলের জন্য ব্যবস্থা করেছেন জনতা ব্যাংক টেকনাফ শাখায় কর্মরত আবুল হোসেন। তিনি বলেন, গ্রামীণ এই রাস্তাটি মাটিতে তলিয়ে গেছে, বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতা শুরু হয় এবং রাস্তাটি বর্ষা মৌসুমে সম্পূর্ণ পানিতে তলিয়ে যায়। দেখলে মনে হয় এটি একটি পুকুর। দুই গ্রামের সাধারণ মানুষের একমাত্র গ্রামীণ এ সড়কটি নিজ উদ্যোগে সংস্কারে এগিয়ে আসেন তিনি। তিনি নিজ অর্থায়নে আংশিক সংস্কার করছেন গ্রামীণ এই সড়কটি। দীর্ঘদিন ধরেই কয়েকটি গ্রামের মানুষ এই রাস্তাটির কারণে চরম ভোগান্তির সম্মুখীন হচ্ছে। তাই সাধারণ মানুষের কথা ভেবে নিজ অর্থায়নে রাস্তাটি সংস্কারের ব্যবস্থা করেছি। তিনি আরো বলেন- এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউপি চেয়ারম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে রাস্তাটি সংস্কারে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

সরেজমিনে ঐ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, আবুল হোসেনের নিজ অর্থায়নে আনা হচ্ছে, ট্রাক নিয়ে বালু ও বস্তা কিনে এনে শ্রমিক দিয়ে নিজেই এ কাজ করছেন।

এলাকাবাসী বলেন আবুল হোসেন একজন মানবতাবাদী, প্রতিবাদী ও সমাজ সেবক, তিনি বিভিন্ন সময় সমাজের মানুষের জন্য কাজ করেন। সমাজ উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কর্মকান্ডের সাথে তিনি জড়িত বলে জানান ঐ গ্রামের সাধারণ মানুষ। তাই গ্রামের মানুষের যাতায়াতের একমাত্র এই রাস্তাটি দেখে তিনি সাথে সাথেই নিজ উদ্যোগে রাস্তাটি সংস্কারের ব্যবস্থা করেন। তারা দীর্ঘদিনের অবহেলিত বেহাল এ সড়কটি নিজ উদ্যোগে সংস্কার করায় আবুল হোসেনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং শুধু আবুল হোসেন নয়, জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসার আহবান জানান।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ