টেকনাফে জোরপূর্বক আবাসিক হোটেল জবরদখলের অভিযোগ


কক্সবাজারের টেকনাফে ওয়ারিশ দাবী করে জোরপূর্বক আবাসিক হোটেল জবরদখলের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেছে। দায়েরকৃত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে-
টেকনাফ মৌজার বিএস ৬৭১নং খতিয়ানের রেকর্র্ডীয় মালিক আয়ুব আলী ২৫টি দাগে জমির পরিমাণ ১৪.৩০৬৭ একর। আয়ুব আলী জীবিত থাকাবস্থায় বিগত ২০০১ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার নোটারী
পাবলিকের ২৭নং অছিয়ত নামা মূলে ১৪.৩০৬৭ একর জমি হইতে ৯.২৩০০ একর জমি ১ শতক জমি ৮ ভাই এবং ২ বোনকে অছিয়ত করেছিলেন। উক্ত বিএস ৬৭১নং খতিয়ানের বিএস ১০৮১ দাগ বিএস ৯১০নং খতিয়ানের জনৈক কিমং চৌধূরীর নামে রেকর্ড পরিণিত হইলে আমাদের পিতা আয়ুব আলী পূণরায় তার কাছে থেকে ২০০৩ সালের ২০ জানুয়ারী ৯০নং রেজিষ্ট্রিযুক্ত দলিল মূলে ৩.৩৩ শতক বা ১০ কড়া জমিন খরিদ করিয়েছিলেন এবং বিএস ১০৮১ দাগে হোটেল আল-করম প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন। এ অছিয়ত নামা মূলে মোঃ আলী, শওকত আলী, আশরাফ আলী, তৈয়ুব আলীর নামে আলাদা খতিয়ান সৃজিত হয়। তন্মতে পিতার প্রদত্ত মতে বিগত ২০-২১ বৎসর যাবৎ পরিচালনা ও রক্ষনাবেক্ষন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। চলতি বছরের ১০ মার্চ দূর্লোভের বশবর্তী হয়ে সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও এস আই কামরুজ্জামানকে মোটা অংকের টাকা লেন-দেনের মাধ্যমে ক্রস ফায়ারের হুমকি-ধমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আল করম হোটেল থেকে ৪ ভাইকে উচ্ছেদ করে হোটেল জবর দখল করে। অভিযুক্ত খানকারপাড়া এলাকার মোঃ কায়সার, লিয়াকত আলী, এমদাদ মিয়া, মোঃ আজাদ এর কোনরূপ স্বত্ব, স্বার্থ ও দখল না থাকা এবং তাহারা অন্যান্য দাগাদীর জমি ভোগ ও বিক্রয় করে নিঃস্বত্ববান হওয়া স্বত্বেও পিতার অছিয়ত অমান্য করে হোটেল জবর দখল করে রেখেছে। এব্যাপারে উক্ত ওয়ারিশগণ প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ