মেরিন ড্রাইভ সড়ক উন্নয়নের পর ..জাহাজপুরা মডেল একাডেমিক শিক্ষার আলো ছড়িয়ে পড়ছে


মোঃ আশেক উল্লাহ ফারুকী ()
মেরিন ড্রাইভ সড়ক উন্নয়নের পর জাহাজপুরা মডেল একাডেমী শিক্ষার আলো, ছড়িয়ে দিচ্ছে। টেকনাফ উপজেলা সমুদ্র উপকূলীয় বাহারছড়া ইউনিয়নের মধ্যবর্তী জাহাজপুরা মডেল একাডেমিক (নিম্ম মাধ্যমিক) স্কুল শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে। এলাকার উদ্যোক্তা শিক্ষানুরাগী ছৈয়দুর রহমানসহ কয়েকজন মিলে ২০১১ সালে এ প্রতিষ্ঠানটি স্থাপিত হয়। হাটি হাটি পা পা করে বর্তমানে ৮ম শ্রেনীতে পদার্পন করে আসছে। ২০১৭ ও ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে জে.এস.সি মাধ্যমিক সার্টিফিকেট পরীক্ষা দিয়ে আসছে, শামলাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে। বর্তমানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা দাড়িয়েছে ৩৫০ জন। জাহাজপুর এলাকায় ৩ কিঃ মিটারের মধ্যে মাধ্যমিক প্রতিষ্ঠান না থাকায় এ প্রতিষ্ঠানের দিনাদিন গুরুত্ব বাড়ছে। বৃটিশ আমলে বাহারছড়া সাগর উপকূলে একটি যুদ্ধ জাহাজ নিমর্জ্জিত হলে, এর নামকরন করা হয় জাপাজপুরা এলাকা। অতীতে এ বাহারছড়া ইউনিয়নটি বিদ্যুৎ, শিক্ষা ও যাতায়াতে অবহেলিত ছিল। বর্তমান আঃলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর টেকনাফ বাহাছড়া সাগর উপকূলীয় রক্ষাকারী বেড়ীবাধটি কক্সবাজার পর্য্যন্ত” মেরিনর ড্রাইব সড়কে পরিনত হওয়ায় বাহারছড়া ইউনিয়নটি বিদ্যুট, শিক্ষা ও যাতায়ারে আমুল পরিবর্তন ঘটেছে। বাহারছড়া মেরিন ড্রইব সড়কের পাশ্বে এক খন্ড জমি স্বর্ণের খনিতে পরিনত হয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানটি (নিম্ম মাধ্যমিক) পাঠদান এবং স্বীকৃতি লাভ করলে উপকূলীয় এলাকার গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীরা শিক্ষার আলো পাবে এবং শিক্ষার দ্রুত উন্নয়ন ঘটবে। এমন প্রত্যাশা এলাকাবাসী।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ